মেইন ম্যেনু

সন্তানের জন্ম দিলেও জানতেন না তিনি গর্ভবতী!

টেরি অ্যান হাইড। বয়স মাত্র ২১ বছর। ইংল্যান্ডের নিউক্যাসেলে বসবাস করেন। পরিচিত বন্ধু-বান্ধব কিংবা আত্মীয়-স্বজন সবাই তাকে পার্টি গার্ল নামেই চেনে। নিজ মুখে স্বীকারও করেছেন সে কথা। এই তরুণীর ক্ষেত্রে যা ঘটেছে তা রীতিমতো অকল্পনীয়। অনেকেই বিশ্বাস করতে চাচ্ছেন না টেরির জীবনের ঘটে যাওয়া এক বিস্ময় করার মতো অবাক তথ্যকে।

টেরি অ্যান বিভন্ন পার্টিতে নিয়মিতই অংশ নেন। কোনো বারে একবার বসলে অন্তত ১৫ প্যাক না হলে তার চলেই না। মনেই হয় না, তিনি উপভোগ করছেন। গত মার্চে এক পুত্র সন্তানের জন্ম দিয়েছেন টেরি। ভাবছেন, এ আবার অবাক হওয়ার মতো কী? কিন্তু টেরির ক্ষেত্রে যা ঘটেছে তা অবাক হওয়ার মতোই।

কারণ টেরি অ্যান জানতেনই না যে তিনি গর্ভবতী! সন্তান পেটে আসলে শারীরিক পরিবর্তন হবে এটিই স্বাভাব্কি। কিন্তু অ্যানের ক্ষেত্রে কোনো কিছুই ধরা পড়েনি। এমনকি ঋতুস্রাবও বন্ধ হয়নি।

পেটের আকারে কোনো পরিবর্তন হয়নি। এমনকি শিশুর অবস্থানও টের পাননি তিনি। একেবারে পার্টি থেকে চিয়ারলিডিং করতে করতে তাকে আচমকাই চলে যেতে হয়েছে হাসপাতালে সন্তানের জন্ম দিতে!

আর তিনি যখন জানতে পারেন যে, তার পেটে রয়েছে সন্তান, তখন আঁতকে উঠেন টেরি অ্যান। তাৎক্ষণিকভাবে চিকিৎসককে টেরি বলেন, তিনি এখন সন্তান চান না।

কিন্তু জন্মের পরই প্রথমবার তাকে আঁকড়ে ধরেন তার ওই সন্তান। সদ্যজাত সন্তানের কাছে থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রাখতে পারেননি টেরি। জ্যাক জনসন নামে এক বয়ফ্রেন্ডও রয়েছে তার। বয়ফ্রেন্ড জ্যাকের সঙ্গেই থাকেন তিনি।






মন্তব্য চালু নেই