মেইন ম্যেনু

সব ব্লগার হত্যার ধরন একই : ফরেনসিক রিপোর্ট

ব্লগার নীলাদ্রি চট্টোপাধ্যায় নিলয়ের হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে অন্য ব্লগারদের হত্যাকাণ্ডের ‘ধরনের’ মিল খুঁজে পেয়েছে চিকিৎসকরা।

নিলয়ের ফরেনসিক পরীক্ষায় একই ধরনের হত্যকাণ্ডের প্রমাণ পাওয়া গেছে।

শনিবার দুপুর পৌনে বারটার দিকে নিলয়ের ময়নাতদন্ত শেষে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান অধ্যাপক হাবিবুজ্জামান চৌধুরী জানিয়েছেন, ব্লগার নীলাদ্রি চট্টোপাধ্যায় নিলয়ের গলা লক্ষ্য করে ধারালো অস্ত্র দিয়ে একাধিক ব্যক্তি কুপিয়েছে। নিলয়ের শরীরে ১০টার মতো আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

অন্য ব্লগার হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে নিলয় হত্যার মিল রয়েছে বলেও তিনি জানান। নিলয়ের ময়নাতদন্ত করেছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের চিকিৎসক ড. হোসেন।

এর আগে খিলগাঁও থানার উপ-পরিদর্শক হিরু মোল্লা নিহতের লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন প্রস্তুত করেন। তিনি বলেন, তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে নিলয়কে। এ ঘটনায় শুক্রবার রাতে খিলগাঁও থানায় অজ্ঞাত চারজন ব্যক্তিকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন নিহতের স্ত্রী আশা মনি। মামলা নম্বর-১১।

গতকাল দুপুরে জুমার নামাজ শেষ হওয়ার পরপরই পূর্ব গোড়ান টেম্পোস্ট্যান্ডের কাছে ৮ নম্বর রোডের ১৬৭ নম্বরের পাঁচতলা ভবনের পঞ্চম তলায় নিলয়ের ঘরে ঢুকে তাকে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

ঘরে তখন নিলয়ের স্ত্রী ও শ্যালিকাও ছিলেন। তাদের অস্ত্রের মুখে বারান্দায় আটকে রাখা হয়েছিল বলে জানিয়েছেন নিলয়ের স্ত্রী আশা মনি।

২৭ বছর বয়সী নিলয় রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট কালেকটিভ নামে একটি বেসরকারি সংস্থায় কাজ করতেন। ব্লগে সাম্প্রদায়িকতা ও মৌলবাদের বিরুদ্ধে লেখালেখিতে সক্রিয় ছিলেন তিনি।

গত কিছুদিন ধরে হুমকি পাওয়ার পর নিরাপত্তাহীনতার কথা জানিয়ে নিলয় আড়াই মাস আগে জিডি করতে গেলেও থানা তা নেয়নি বলে ফেইসবুকে এক পোস্টেও তিনি লিখে গেছেন।

অভিজিৎ রায়, ওয়াশিকুর রহমান বাবু ও অনন্ত বিজয় দাশের মতো এই ব্লগারকে হত্যার দায় স্বীকার করেও আল কায়দার ভারতীয় উপমহাদেশ শাখার বিবৃতি এসেছে।






মন্তব্য চালু নেই