মেইন ম্যেনু

সম্প্রতি যে স্কুটার অটো ইন্ডাস্ট্রিতে আলোড়ন তুলতে যাচ্ছে!

ভারতের বেঙ্গালুরুভিত্তিক স্টার্টআপ আতহার এনার্জি সম্প্রতি এস৩৪০ নামে বৈদ্যুতিক শক্তিচালিত একটি স্মার্ট স্কুটার প্রদর্শন করেছে। এটি একটি প্রদর্শনীতে দেখানোর পর থেকেই ক্রেতাদের মনোযোগ আকর্ষণ করেছে। বহু মানুষই এটি টেস্ট রাইড করার জন্য অপেক্ষায় রয়েছে। স্কুটারটির রয়েছে বেশ কিছু অনবদ্য ফিচার, যা ক্রেতাদের আকর্ষণের মূল কারণ।

নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের সহ-প্রতিষ্ঠাতা তরুণ মেহতা এ স্কুটারটির বিভিন্ন বিষয় সম্প্রতি তুলে ধরেছেন। তিনি জানিয়েছেন এ স্মার্ট স্কুটারটিতে থাকছে লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেমচালিত ড্যাশবোর্ড। এছাড়া এতে থাকছে পার্সোনালাইজড প্রোফাইল, রাইডিং মোড যেমন স্পোর্ট ও ইকনোমি নেওয়ার ব্যবস্থা। এছাড়া থাকছে অনবোর্ড নেভিগেশন সিস্টেমও।

এ স্কুটারটি চলবে বৈদ্যুতিক শক্তি ব্যাটারিতে ধারণ করে। ব্যাটারিচালিত হওয়ায় এটি পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর ধোঁয়া উদগিরণ করবে না। এছাড়া চলাচলেও খুবই কম শব্দ উৎপন্ন করবে এটি। এছাড়া নির্মাণে টেকসই ও হালকা উপাদান ব্যবহৃত হওয়ায় এটি নানাভাবে সুবিধাজনক হবে। ৮৫ কেজি ওজনের স্কুটারটির প্রায় সব যন্ত্রই নতুন করে ডিজাইন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন নির্মাতারা। এ ডিজাইনের পেছনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিল ওজন কমানো। এ কারণে সাইড স্ট্যান্ডটিকেও নতুন করে ডিজাইন করা হয়েছে।

মেহতা বলেন, ব্যবহারকারীরা এ স্কুটারটির অবস্থান অনলাইনের মাধ্যমেই জানতে পারবেন। স্মার্টফোন ব্যবহার করে এটি দূর থেকে নিয়ন্ত্রণ ও মনিটর করা যাবে। এর সঙ্গে থাকা অ্যাপ ব্যবহার করে দ্রুত চার্জ করে নেওয়াও সম্ভব। তিনি জানান, আপনি কোন ধরনের অ্যাক্সিলারেশন ও গতি পছন্দ করেন, সর্বোচ্চ গতি কত চান এসব বিষয় আপনার প্রোফাইলে সংরক্ষিত থাকবে। গাড়িটি চালানোর আগে এ প্রোফাইল সিলেক্ট করে নিলেই তা আপনার পছন্দমতো চলবে।

এস৩৪০ মডেলের স্কুটারটি একবার চার্জ করলে কত কিলোমিটার চলবে? এ প্রশ্নে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে এটি বিভিন্ন ব্যবহারকারীর পছন্দনীয় গতি ও অন্যান্য অবস্থার ওপর নির্ভরশীল। তবে তা ৫০ থেকে ১০০ কিলোমিটারের মধ্যে নির্ভর করবে। এতে ব্যবহৃত ব্যাটারিগুলো লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি। এটি এক হাজারেরও বেশিবার চার্জ করা যায় সহজেই। তবে স্বাভাবিকভাবে আশা করা যায় তা দেড় হাজার থেকে দুই হাজার রিচার্জ সাইকেল পর্যন্ত কর্মক্ষম থাকবে বলে জানিয়েছেন মেহতা।প্রাথমিকভাবে এটি ভারতের বেঙ্গালুরু, পুনে ও চেন্নাইতে বাজারজাত করা হবে। আগামী আড়াই মাসের মধ্যে এটি প্রিঅর্ডার ও ট্রায়াল করা যাবে। পরবর্তীতে অন্যান্য স্থানেও বাজারজাত করার পরিকল্পনা রয়েছে উদ্যোক্তাদের। স্কুটারটির মূল্য এখনও ঘোষণা করা হয়নি।






মন্তব্য চালু নেই