মেইন ম্যেনু

সময় পেরিয়ে গেলেও কক্সবাজারে শুরু হয়নি ধান সংগ্রহ অভিযান

মোঃ আমান উল্লাহ, কক্সবাজার থেকে : গত ৫ মে থেকে কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ধান সংগ্রহের কথা থাকলেও কক্সবাজারে এখনো শুরু হয়নি এ অভিযান। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এখন প্রচার প্রচারনা চলছে। এই মাসের যে কোন সময় থেকে কৃষকদের কাছ থেকে ধান ক্রয় শুরু হবে।

এ অবস্থায়, হাট-বাজারগুলোতে পানির দামে ধান বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন কৃষকরা।

কক্সবাজার জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে মাঠে মাঠে চলছে ধান কাটা ও মাড়াইয়ে উৎসব। তবে এবার এ উৎসবে মলিন কৃষকের মুখ। প্রতি কানি জমিতে ধান চাষে কৃষকের যখন খরচ হয়েছে ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা। সেখানে সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী মোটা চিকন প্রকার ভেদে ৮শ’ থেকে ৯শ’ টাকা মন দরে ধান বিক্রি করে উৎপাদন খরচই উঠবে না তাদের। এ অবস্থায় কৃষরালোকসান দিয়েই বিক্রি করছেন ধান।
এদিকে মিল ও চাতাল মালিকরা ধান কিনতে শুরু না করায় ছোট ছোট ব্যবসায়ীরা বাজারে ধান কিনছেন না। আর চাতাল মালিকরা বলছেন, জেলায় চাল কেনার বরাদ্দ দেখে তারা ধান কিনবেন।

এবার ২৩ টাকা কেজি দরে সরাসরি কৃষকদের নিকট থেকে ধান কিনবে সরকার। জেলায় মে মাসের যে কোন দিনের মধ্যে এ ক্রয় অভিযান শুরু হবে বলে জানান কক্সবাজার সদর উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা শাহ জামাল।

তিনি আরও জানান, মে ও জুন মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত চলবে ধান সংগ্রহ অভিযান এবং ৩১ আগষ্ট পর্যন্ত চাল সংগ্রহের পাশাপাশি ধান সংগ্রহ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

এ লক্ষে ইউনিয়ন ভিত্তিক প্রান্তিক চাষীদের তালিকা তৈরির নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তালিকায় কৃষি উপকরণ সহয়তা কার্ড ও জাতীয় পরিচয় পত্রের কার্ডধারী কৃষকদের অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। তালিকার বাইরে ফড়িয়া, ব্যবসায়ী ও দালালদের কাছ থেকে ধান কেনা যাবে না।

এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক ও জেলা খাদ্য সংগ্রহ কমিটির সভাপতি মোঃ আলী হোসেন জানান, প্রতি বছর ফড়িয়াদের ফাঁদে পড়ে কৃষকরা ধানের প্রকৃত দাম পায়না। তাই কৃষকদের ধানের ন্যায্য মূল্য প্রদানের লক্ষে সরকার সরাসরি ধান সংগ্রহ কার্যক্রম মনিটরিং করবে। এ ক্ষেত্রে কেউ অনিয়মের আশ্রয় নিলে তাকে ছাড় দেয়া হবেনা। তিনি কৃষকদের সরকার ব্যতিত কোন ব্যক্তি, ব্যবসায়ী বা ফড়িয়াদের ধান বিক্রি না করার জন্য অনুরোধ জানান।

এবার জেলায় ৯শ’ ২০ টাকা মণ দরে এবার সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে ৮হাজার ১শ’ ৬৯ মেট্রিক টন ধান সংগ্রহ করবে সরকার।






মন্তব্য চালু নেই