মেইন ম্যেনু

সহবাসে প্রেমিকা গর্ভবতী! অন্যত্র বিয়ে করতে ট্রেনের চাকায় যুবতীর হাত কাটল প্রেমিক

প্রথমে দুই বছরের প্রেম। তার পরে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাস। যার ফলে গর্ভবতী হয়ে পড়েন প্রেমিকা। অন্যদিকে প্রেমিক চেষ্টা করছিল অন্যত্র বিয়ে করার। আর তা জানাজানি হতেই নির্মমভাবে প্রেমিকাকে খুনের চেষ্টা করল যুবক।

গর্ভবতী হওয়ার পরেও প্রেমিক বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় মালদহের রতুয়া থানায় অসীম মণ্ডল নামে ওই যুবকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন প্রেমিকা। তা জানতে পেরেই ওই যুবতীকে রাতে ফোন করে দেখা করতে চায়। এর পরে সামসি স্টেশন থেকে দু’জনে ট্রেনে ওঠে। কিছুক্ষণ পরেই ওই যুবতীকে চলন্ত ট্রেন থেকে উল্টো দিকে থেকে আসা ট্রেনের নীচে ধাক্কা মেরে ফেলে দেয় অসীম। প্রাণে বাঁচলেও ওই যুবতীর ডান হাত ট্রেনের চাকায় কাটা পড়ে। শরীরে মারাত্মক আঘাতও লাগে তাঁর। গুরুতর আহত অবস্থায় মালদহ মেডিক্যাল কলেজে ওই যুবতীর চিকিৎসা চলছে। প্রচুর রক্তক্ষরণ হওয়ায় ওই যুবতী মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

মালদহের রতুয়া থানা এলাকার বাসিন্দা ওই যুবতীর সঙ্গে পারিবারিক ব্যবসার সূত্রে অসীম মণ্ডল নামে অভিযুক্ত যুবকের আলাপ হয়। সেই থেকে ঘনিষ্ঠতা। সম্প্রতি গর্ভবতী হয়ে পড়েন ওই যুবতী। বিয়ের জন্য অসীমের উপরে চাপ দিতে থাকেন তিনি। কিন্তু নানা অছিলায় তাঁকে এড়িয়ে যাচ্ছিল অসীম। শেষ পর্যন্ত ওই যুবতী জানতে পারেন যে রতুয়ার ফতেপুরের বাসিন্দা এক তরুণীকে বিয়ের চেষ্টা করছে ওই যুবক। এর পরেই মঙ্গলবার অসীমের বিরুদ্ধে থানায় ধর্ষণের অভিযোগ করেন ওই যুবতী। জানতে পেরেই প্রেমিকাকে পৃথিবী থেকে সরিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করে অসীম। প্রেমিকাকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তাঁকে দেখা করতে বলে সে। এর পরেই ট্রেনে তুলে ওই যুবতীকে ধাক্কা মেরে ফেলে দেয় অভিযুক্ত অসীম। কিন্তু হাত কাটা গেলেও কোনওক্রমে প্রাণে বেঁচে যান যুবতী। পলাতক প্রেমিকের খোঁজ চালাচ্ছে পুলিশ।






মন্তব্য চালু নেই