মেইন ম্যেনু

সাকিবের সাথে এ কেমন আচরণ গাম্ভীরের!

অলরাউন্ডার হিসেবে কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে খেলছেন সাকিব আল হাসান। বৃহস্পতিবার সুরেশ রায়নার গুজরাট লায়ন্সের বিরুদ্ধে ব্যাট হাতে সুবিধা করতে পারেননি সাকিব।

শুধু সাকিব নন, এদিন অন্যদের মধ্য প্রায় অনেকেই ব্যর্থ ছিল। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৩৬ রান করেছেন ইউসুফ পাঠান, তাও আবার ৩৬ বলে। ২৬ বলে ৩৬ রানের ইনিংস টি ২০-তে বড্ড বেমানান। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রবিন উথাপ্পার (২৫)। আর ব্যাট হাতে সাকিবের সংগ্রহ মাত্র ৩ রান।

ফলে কলকাতার স্কোরও ৮ উইকেটে ১২৪ রান। গুজরাটের ডুয়েন স্মিথ চার ওভারে মাত্র ৮ রানে ৪ উইকেট নিয়ে একাই কলকাতার ব্যাটিং লাইন ভেঙে দেন, পরে অবশ্য ম্যাচসেরাও হয়েছেন তিনি।

এমন লো স্কোরিং ম্যাচে সাকিব বল হাতে কিছু একটা করবেন বা করতে পারতেন হয়ত এমনটা ভেবে আশায় বুক বেঁধেছিল সাকিব অনুরাগীরা। কিন্তু গুড়ে বালি! অধিনায়ক গৌতম গাম্ভীর তার হাতে একটি বারের জন্যও বল দেননি। গাম্ভীরের এরুপ আচরণে হতাশ সাকিব অনুরাগীরা।

ম্যাচের ফলও হয়েছে অনুমিত। ১৩.৩ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে জয় তুলে নিয়েছে গুজরাট লায়ন্স। দলের পক্ষে রায়না ৩৬ বলে ৫৩ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন।

এছাড়া অ্যারন ফিঞ্চ করেন ২৬ রান। তৃতীয় সর্বোচ্চ ১৭ রান এসেছে অতিরিক্ত থেকে। কলকাতার পক্ষে সুনীল নারিন, মরনে মরকেল ও অঙ্কিত রাজপুত একটি করে উইকেট পেয়েছেন।

এ জয়ে গুজরাট ১৩ ম্যাচে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে উঠে এসেছে। তবে এখনও তাদের প্লে-অফ নিশ্চিত নয়। এক ম্যাচ কম খেলে মুস্তাফিজুর রহমানের সানরাইজার্স হায়দরাবাদ রয়েছে শীর্ষে। ১৩ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু। আর সমান ম্যাচ ও পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ কলকাতা নাইট রাইডার্স। তবে সবচেয়ে বেশি বিপদ জোনে রয়েছে কলকাতা।






মন্তব্য চালু নেই