মেইন ম্যেনু

নাশকতার আশঙ্খা

সাতক্ষীরায় জামায়াত-বিএনপির ১৭ কর্মীসহ গ্রেফতার ৩৭

সাতক্ষীরায় হরতালে নাশকতার পরিকল্পনার আশংকায় জামায়াত-বিএনপির ১৭ কর্মীসহ ৩৭ জনকে গ্রেফতার হয়েছে।

বুধবার রাত থেকে বৃহস্পতিবার ভোর পর্যন্ত জেলার আটটি থানায় যৌথবাহিনী বিশেষ অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে সদর উপজেলার মধুমাল্লারডাঙ্গী গ্রামের জামায়াতের রোকন মাওলানা মোজাফফর হোসেনসহ জামায়াতের ১৪ জন ও বিএনপির ৩ জন কর্মী রয়েছে। এছাড়া নিয়মিত মামলার ২০ জন ও গাঁজা সেবনের অভিযোগে তালা উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলামসহ চারজন গ্রেফতার হয়েছন।

সাতক্ষীরা জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার উপ-পরিদর্শক (এসআই) এনামুল হক জানান, রাতে যৌথবাহিনীর বিশেষ অভিযানে সদর থানায় ১১ জন, কলারোয়ায় চারজন, তালায় চারজন, কালিগঞ্জে তিনজন, আশাশুনিতে দু’জন, দেবহাটায় একজন, শ্যামনগরে তিনজন ও পাটকেলঘাটায় পাঁচজন ও ডিবি পুলিশ চারজনকে গ্রেফতার করেছে।

এদিকে, মানবতাবিরোধী অপরাধী আলী আহসান মুজাহিদের ফাঁসির রায় বহাল থাকায় জামায়াতের ডাকা হরতালে সাতক্ষীরার জনজীবন স্বাভাবিক রয়েছে। হরতালের সমর্থনে কোথাও কোন মিছিল-মিটিং-পিকেটিংয়ের খবর পাওয়া যায়নি। সকাল থেকেই সবকটি রুটে যানবাহন চলাচল করছে। খুলেছে ব্যাংক-বীমা, স্কুল-কলেজ, অফিস-আদালত। স্বাভাবিক রয়েছে ভোমরা বন্দরের আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রমও।

তবে, নাশকতা এড়াতে সর্তকাবস্থায় রয়েছে পুলিশ। শহরে পুলিশি টহল বাড়ানো হয়েছে। এছাড়া পুলিশের সাথে দুই প্লাটুন বিজিবি সদস্যকেও টহল দিতে দেখা যাচ্ছে।

এ ব্যাপারে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান জানান, সাতক্ষীরায় জনজীবন স্বাভাবিক রয়েছে। দুই প্লাটুন বিজিবি টহল দিচ্ছে। এছাড়া অতিরিক্ত দুই প্লাটুন বিজিবি রিজার্ভ রয়েছে। তবে, বিজিবি সদস্যদের এই টহল নিয়মিত, হরতালের উদ্দেশ্যে নয় বলে জানান তিনি।






মন্তব্য চালু নেই