মেইন ম্যেনু

সাতক্ষীরায় বিদ্যূৎ এর লোড সেডিং, দূর্বিসহ হয়ে উঠছে জনসাধারনের জীবন যাপন

পর্যাপ্ত পরিমান ট্রান্সফরমারের অভাব,বিপুল পরিমান নতুন সংযোগ,হাজার হাজার ব্যাটারী ভ্যান ও ইজি বাইক সহ নানা বিধ কারনে সাতক্ষীরা জেলার প্রায় ২ লক্ষ পল্লী বিদ্যূৎ গ্রাহককে লোড সেডিং এর কবলে পড়ে দূর্বিসহ যন্ত্রনা ভোগ করতে হচ্ছে। দিন দিন লোড সেডিং এর কারনে দুঃসহ হয়ে পড়ছে জনসাধারন সহ ছাত্র/ছাত্রীদের জীবন।

অধিকাংশ সময় এলাকাভেদে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত চলে বিদ্যূৎ এর ভেল্কিবাজি। সন্ধ্যা হলেই বিদ্যূৎ এর লুকোচুরির মাত্রা আরো বেশি বেড়ে যায়। প্রতি দিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত থেমে থেমে প্রায় ৮ থেকে ১০ বার লোড সেডিং হয়। একেক বারে বন্ধ হয়ে ১ থেকে দেড় ঘন্টা বা তার ও বেশী সময় বিদ্যূৎ বন্ধ থাকে । বর্তমানে লোড সেডিং এর কবলে পড়ে সবচেয়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে সাতক্ষীরার শিশু ও ছাত্র/ছাত্রীরা।

আগামীতে যে সমস্ত ছাত্র/ছাত্রীরা এস,এস,সি পরীক্ষা দিবে এখন তাদের চলছে নির্বাচনী পরীক্ষা। ১ নভেম্বর থেকে শুরু হবে জে,এস,সি পরীক্ষা। তাছাড়া নভেস্বর মাসের শেষের দিকে শুরু হবে পি,এস,সি ও বার্ষিক পরীক্ষা। ঐ সমস্ত পরীক্ষার্থীদের এখন প্রস্তুুতী নেওয়ার সময়। বার বার লোড সেডিং এর কারনে তাদের স্বাভাবিক লেখাপড়ায় মারতœক ব্যাঘাত ঘটছে।

একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী জেলায় গত জুলাই মাসে ১’শ ৮০ ঘন্টা, আগষ্ট মাসে প্রায় ২’শ ঘন্টা সেপ্টেম্বর মাসে প্রায় আড়াই’শ ঘন্টা বিদ্যূৎ এর লোড সেডিং ছিল। বিদ্যূৎ এর কেন এত লোড সেড হচ্ছে এ ব্যাপারে অনুসন্ধানে জানা যায়, পল্লী বিদ্যূৎ এর ট্রান্সফরমার গুলো পযাপ্ত ধারন ক্ষমতা সম্পন্ন না। কলারোয়া উপজেলা জন্য গোপিনাথপুর সাব ষ্টেশনের ট্রান্সফরমার ৫ এম ভি এ বিদ্যূৎ সরবরাহ করতে পারে । কিন্তু ঐ এলাকায় চাহিদা রয়েছে ১৭ কেভি বিদ্যূৎ এর। পল্লী বিদ্যূৎ এর অন্যান্য এলাকার ট্রন্সিফরমার গুলো ১৩ কেভি। ফলে ঐ সমস্ত এলাকায় প্রতিদিন প্রায় ৪ কেভি বিদ্যূৎ এর লোড সেডিং করতে হয়।

ফিউজ নষ্ট, ট্রান্সফরমার নষ্ট,রাইট ওয়ে বা রাস্তার পাশের গাছের ডাল পালা কাটার সময় বিদ্যূৎ সরবরাহ বন্ধ করতে হয়। এ ছাড়া সরকারের টার্গেট অনুযায়ী প্রতি মাসে সাড়ে ৪ হাজার নতুন সংযোগ দিতে হচ্ছে। এ হিসাবে গত ৫ মাসে জেলায় প্রায় ২০ থেকে ২২ হাজার নতুন গ্রাহক সৃষ্টি হয়েছে। হঠাৎ করে সাতক্ষীরা জেলার সর্বত্র বেড়ে গেছে ইজি বাইক ও ব্যাটারী ভানের পরিমান। প্রতিদিন ইজি বাইক ও ব্যাটারী ভ্যানগুলো চার্জ্য দিতে প্রচুর পরিমান বিদ্যূৎ খরচ হচ্ছে।আর এসব কারনে বেড়ে যাচ্ছে বিদ্যূৎ এর লোড সেডিং।

তবে সাতক্ষীরা বাসীর জন্য আশার কথা শোনালেন ঝাউডাঙ্গা পল্লী বিদ্যূৎ জোনাল অফিসের জোনাল ম্যানেজার, তিনি জানান, কলারোয়ার গোপিনাথপুর ৫ কেভি এ বিদ্যূৎ ষ্টেশনকে ১০ কেভি এতে রুপন্তরিত করার কাজ শুরু হয়েছে। আগামী এক মাসের মধ্যে শেষ হবে ১০ কেভি এ তে রুপন্তরের কাজ। এছাড়া আলীপুরে ও বিনেরপোতায় ১০ কেভি করে দুটি সাব ষ্টেশনের কাজ খুব শ্রীঘই শুরু হবে। তিনি আরো জানান, আগামী এক বছরের মধ্যে সাতক্ষীরাতে আর কোন লোড সেডিং থাকবে না।

সাতক্ষীরা পল্লী বিদ্যূৎ এর ১ লক্ষ ৮০ হাজার গ্রাহক দূর্বিসহ লোড সেডিং কবল থেকে মুক্ত করার জন্য সরকারের উর্দ্ধতন কতৃপক্ষের নিকট জোর দাবী জানিয়েছেন।






মন্তব্য চালু নেই