মেইন ম্যেনু

সাতক্ষীরায় শুরুতেই ভোট জালিয়াতি: পুলিশের গুলিতে আহত ২

সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটা থানার কুমিরা ইউনিয়নের ভাগবাহ ভোটকেন্দ্রে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর পক্ষে ভোট জালিয়াতির সময় পুলিশের গুলিতে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস ও তার ছোট ভাই রুহুল আমিন আহত হয়েছেন। তাদেরকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার ভোর রাতে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সূত্র জানায়, রুহুল কুদ্দুস ও রুহুল আমিনের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ভাগবাহ ভোট কেন্দ্রে নৌকা প্রতীকের ব্যালট পেপার কেটে বক্স ভর্তি করছিল। দায়িত্বরত প্রিজাইডিং অফিসার তাদেরকে ভোট জালিয়াতি করতে নিষেধ করলে তারা তর্কে জড়িয়ে পড়ে। পরে পুলিশ তাদেরকে ধাওয়া করলে তারা পুলিশের ওপর চড়াও হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ গুলি ছোড়ে। এতে আ.লীগ নেতা ও তার ভাই পায়ে গুলিবিদ্ধ হন। তাদেরকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পাটকেলঘাটা থানার ওসি তরিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

অন্যদিকে, তালা উপজেলার খলিলনগর ইউনিয়নের হরিশ্চন্দ্রকাটি কেন্দ্রে ভোট কারচুপিতে বাধা দেয়ায় চার আনসার সদস্যকে পিটিয়ে আহত করেছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। আহত আনসার সদস্যরা হলেন মিরাজ, কামরুল, ফরিদা ও নারগিস।

এদিকে কলারোয়া উপজেলার কুশোডাঙ্গা ইউনিয়নের কলাটুপি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আসলামুল হক গভীর রাতে প্রিজাইডিং অফিসারের কাছ থেকে জোর করে ব্যালট নিয়ে বক্স ভর্তি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রিজাইডিং অফিসার গৌতম ঘোষ বলেন, ‘বিষয়টি আমি উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানিয়েছি।’

একই উপজেলার দেয়াড়া ইউনিয়নের বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী ইব্রাহিম হোসেন অভিযোগ করেন, ভোটের আগের রাতে তার দেয়াড়াস্থ বাড়িতে কমপক্ষে ৫টি বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে দুর্বৃত্তরা।






মন্তব্য চালু নেই