মেইন ম্যেনু

বোরো চাল সংগ্রহ মৌসুমে সরবরাহকারী মিলারদের হয়রাণির প্রতিবাদে

সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের নিকট স্মারকলিপি প্রদান মিল মালিক সমিতির

বসন্তপুর সরকারী খাদ্য গুদামে বোরো চাল সংগ্রহ মৌসুমে সরবরাহকারী মিলারদের হয়রাণি করার প্রতিবাদে জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছে মিল মালিক সমিতির সদস্যবৃন্দ। রোববার বেলা ১২টায় জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসানের নিকট এ স্মারকলিপি প্রদান করেন।

স্মারকলিপি সূত্রে জানা যায়, ‘বসন্তপুর সরকারী খাদ্য গুদামে বোরো চাল সংগ্রহ/১৫ মৌসুমে খাদ্য বিভাগের সহিত চাউল সরবরাহের জন্য চুক্তি সম্পাদন করে। কালিগঞ্জ উপজেলায় চাউলের লক্ষ্যমাত্রা ৬১৪.০০০ মেঃ টন। অর্জন ৪১৯.১৫০মেঃ টন। অবশিষ্ট চাউল ১৯৪.৮৫০ মেঃ টন। সংগ্রহ কমিটির সভাপতি কালিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মৌখিক আদেশ বলে খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন তার প্রতিনিধি ছাড়া কোন চাউল গুদামে প্রবেশ করবেনা।

গত ১৫ জুন থেকে বোরো চাউল সংগ্রহ শুরু হলেও সংগ্রহ কমিটির দ্বারা সরবরাহকারী মিল মালিক সমিতির সদস্যরা নানাভাবে হয়রাণির স্বিকার হচ্ছে। এছাড়া বর্ষা মৌসুমে চাউল ভর্তি যানবাহনগুলো সারাদিন গুদামের বাইরে অবস্থান করার ফলে বৃষ্টি আবহাওয়ার কারণে চাল বিনির্দেশের বাইরে চলে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। মিল মালিক সমিতির সদস্যরা চাল ভর্তি যানবাহন নিয়ে সকাল ৮টায় গুদামে প্রবেশ করলেও সংগ্রহ কমিটির প্রতিনিধি না থাকার কারণে বিকালে আবার চালভর্তি যানবাহন মিলে ফেরত নিয়ে যেতে হচ্ছে। ফলে মিল মালিক সমিতির সদস্যরা প্রচুর পরিমাণে আর্থিক ক্ষতির সম্মুখিন হচ্ছে।’

এসময় উপস্থিত ছিলেন মিল মালিক সমিতির সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন, সহ সভাপতি খলিলুর রহমান, মিল মালিক হাছিনা মমতাজ, আবুল কাশেম, এস.এম হাবিবুর রহমান, এহ্ছানুল হক, এনামুল হক, আব্দুল আজিজ, এলাহী বকস্ সরদার, আব্দুর রশীদ, মোঃ সালাউদ্দীন, আব্দুল গফুর, আব্দুল করিম চৌধুরী, শেখ মাহমুদ, নূর জাহান, জামিরুল ইসলাম, বিমল চন্দ্র মন্ডল, ফজলুল হক, শেখ শাহজাহান প্রমুখ। বিষয়টি সুষ্ঠু সমাধানের জন্য জেলা প্রশাসক বরাবর এ স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই