মেইন ম্যেনু

সাবধান! সুপার-স্টোর থেকে কেনাকাটা করার সময় ক্যাশমেমো চেক করেন তো?

“স্বপ্ন”কে নিয়ে এবার লিখতেই হল।

ওদের জোচ্চুরি তৃতীয়বারের মত হাতেনাতে ধরা পরার পর আর চুপ থাকতে ইচ্ছা হল না।

একবার না, দুইবার না, তিনতিন বার যখন একই “ভুল” হয়, তখন সেটাকে আর “ভুল” বলা যায় না। সেটার পিছনে অন্য উদ্দেশ্যটাই প্রকট হয়ে ওঠে।

সহজ একটা প্রশ্ন করি। যখন আপনারা এ জাতীয় কোন সুপার-স্টোর থেকে অনেককিছু একসাথে কেনেন, কতজন প্রতিটা আইটেম’এর দাম আলাদাভাবে চেক করে পেমেন্ট করেন?

আমার ধারণা, আমরা অনেকেই সেটা করি না। ম্যাক্সিমাম হয়তো ক্যাশমেমোতে আইটেমগুলি মিলিয়ে নিয়ে দেখি কোন আইটেম বাদ গেলো কিনা, অথবা ডাবল বিলিং করা হল কিনা।

আমার বিশ্বাস, ওরা আমাদের এই ব্যাপারটারই সুযোগ নেয়।

আমাদের সাথে এই নিয়ে তিনবার ব্যাপারটা ঘটলো। ধরেন, একটা জিনিসের দাম ২০ টাকা, ওরা স্ক্যান করলে সেটার দাম লেখা হয়ে গেলো ৯৫ টাকা।

কেনা হয়েছে ধরেন ২০টা জিনিস, কার এতো সময় আছে বলেন, প্রত্যেকটা আইটেম আলাদা আলাদা করে দাম চেক করার?

যাই হোক। আমার বউ দীর্ঘদিন ফিনান্সে কাজ করার কারণে এইসব ব্যাপারে একটু বেশীই সতর্ক। তাই সে সবকিছুই একটু খুঁটে খুঁটে পরীক্ষা করে।

যখন সে টিলে বসা মেয়েটাকে ব্যাপারটা বলে, সে আবারও সিস্টেম চেক করে। এবং এবারও একই ঘটনা ঘটে। ২০ টাকার জিনিসের দাম এন্ট্রি হয় ৯৫ টাকা।

ম্যানেজারকে ডাকা হয়, সে আমতা আমতা করে বলে, “ম্যাডাম, ভুল হয়ে গেছে। সিস্টেমে এন্ট্রি দিতে মনে হয় ভুলটা হয়েছে।”

একবার হলে ব্যাপারটা নিয়ে কথা বলতাম না। ম্যানেজারের কথাকেই সত্যি বলে মেনে নিতাম। কিন্তু ব্যাপারটা আমাদের সাথে তিনবার হয়েছে। এবং, এই ঘটনা আমি আরও কয়েকজনের কাছ থেকে শুনেছি।

কতোগুলি আইটেমের দাম এভাবে তাদের সিস্টেমে “ভুল” করে এন্ট্রি দেয়া হয়েছে, সেটাই প্রশ্ন আমার। কোন আইটেমের দাম “ভুল” করে কম ধরা হয়েছে, এমন উদাহরণ আছে বলে এখনো শুনি নাই!

আমি ভাই গোয়েন্দা না, সাংবাদিক, উকিল বা পুলিশও না। আমার লেখা যারা পড়েন তারা কেউ ব্যাপারটা নিয়ে আরেকটু গভীরে যেতে পারেন।

বাকিরা ওখান থেকে কেনাকাটা করলে একটু কষ্ট করে দামগুলি মিলিয়ে নেবেন প্লিজ। কষ্টের টাকা দুষ্ট লোকের পকেটে দিয়ে নষ্ট করে কি লাভ?

আজকের ক্যাশমেমো’টা দিয়ে দিলাম, যেখানে ধরা খাওয়ার পর তারা “রিটার্ন ১৫০ টাকা” লিখে দিয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম Prothom-Alo Noksha থেকে সংগ্রহিত






মন্তব্য চালু নেই