মেইন ম্যেনু

সাব্বির: দ্য রয়েল বেঙ্গল টাইগার

দুই রানে নেই দুই উইকেট। মালিঙ্গা নেই, তবে ম্যাথুজ ও কুলাসেকেরাতেই শেষ দুই ওপেনার। মিথুন ০, সৌম্য ০। ভয়াবহ ব্যাটিং বিপর্যয়। পুরো গ্যালারি স্তব্ধ। গতকাল ভারতের বিপক্ষে পাকিস্তানের যে অবস্থা হয়েছিল, বাংলাদেশও কি সেদিকে যাচ্ছে? এ প্রশ্ন বার বার ভেসে আসছিল।

কিন্তু না, সাব্বির একাই পাল্টে দিলেন দৃশ্যপট। প্রথমে মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে ২৪ রানের জুটি। এরপর সাকিবকে নিয়ে দলের ঝুঁড়িতে যোগ করলেন আরা ৮২ রান। আর তাতেই লজ্জা থেকে রক্ষা পেয়ে সম্মানজনক স্কোর করল বাংলাদেশ।

৩৮ বলে করেছেন হাফ সেঞ্চুরি। আর ৫৪ বলে ৮০ রানের তুখোড় ইনিংস খেলে শেষমেশ ফিরতে হয় সাব্বিরকে। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে এটা তার সর্বোচ্চ রানের ইনিংস। এর আগে সর্বোচ্চ রানের ইনিংসটা ৫১ রানের।

টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ রানের ইনিংসের মালিক তামিম ইকবাল।২০১২ সালে ঢাকায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৬১ বলে অপরাজিত ৮৮ রান করেছিলেন তামিম। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান আসে সাকিব আল হাসানের ব্যাট থেকে। ২০১২ সালে পাল্লেকেলেতে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৮৪ করেছিলেন তিনি। তার আগে ২০০৭ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৮১ করেছিলেন নাজিমউদ্দিন। সাব্বিরের আজকের ইনিংসটা দেশের পক্ষে চতুর্থ সর্বোচ্চ।

তবে এদিন মনে হয়েছিল সবাইকে ছাড়িয়ে যাবেন সাব্বির। কিন্তু পারেননি। তবে, কঠিন সময়ে যে ইনিংসটা খেলেছেন তার তুলনা নেই।

মারকুটে ব্যাটসম্যান হিসেবে আগে থেকেই নামধাম আছে তার। নিচের দিকে ব্যাটিং করার ফলে বড় ইনিংস খেলার সুযোগ কমই পেতেন। গত মাসে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে প্রমোশন হয় তার। নামেন তিন নম্বরে। বেশ সফলও হন সেখানে। এরপরই তিন নম্বর পজিশনটা পাকাপোক্ত হয়ে যায়। এশিয়া কাপেও এই পজিশনে দারুণ করছেন এ সাহসী ব্যাটসম্যান।



(পরের সংবাদ) »



মন্তব্য চালু নেই