মেইন ম্যেনু

সাভারের চুরি হওয়া লাশ যাচ্ছে কোথায়

বাসিন্দারা জানিয়েছেন, এ ঘটনায় আশুলিয়া থানায় সাধারণ ডায়েরী করা হয়েছে।

গকুলনগর গ্রামের ঐ সামাজিক কবরস্থান পরিচালনা কমিটির সাবেক সদস্য আব্দুর রহমান জানিয়েছেন, সোমবার সকালে গ্রামের কয়েকজন বাসিন্দা কবরস্থানের ঘাস কাটতে গিয়ে দেখতে পান কয়েকটি কবরের উপরের অংশের মাটি সরানো। এরপর সন্দেহ হলে কবরস্থান পরিচালনা কমিটির সদস্য এবং স্থানীয় বাসিন্দাদের ডেকে কবরস্থান পরিদর্শন করে দেখা যায়, মোট আটটি কবর খোঁড়া হয়েছে। সেখান থেকে সাতটি লাশ চুরি হয়ে গেছে। অপর লাশটি কঙ্কালে পরিণত না হওয়ায় সেটি ফেলে গেছে চোররা।

মি. রহমান ধারণা করছেন কবরগুলো থেকে দু-একদিন আগে এই চুরির ঘটনা ঘটে। তিনি জানিয়েছেন, গত অক্টোবর মাসেও এই কবরস্থান থেকে ১৩টি কঙ্কাল চুরি হয়েছিল। গ্রামের বাসিন্দাদের সন্দেহ কঙ্কাল চুরি করে সেগুলো মেডিকেল শিক্ষার্থীদের কাছে বিক্রি করে একটি অপরাধী চক্র। মি. রহমান জানিয়েছেন, দুই বিঘা জায়গা নিয়ে তৈরি ঐ কবরস্থানটি গ্রামের মূল বসতি থেকে একটু দূরে অবস্থিত হওয়ায়, জায়গাটি বেশ নির্জন এবং মানুষের আনাগোনা সেখানে খুবই কম।

বিষয়টি নিয়ে আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহসিনুল কাদের বলেন, এ নিয়ে আজই একটি সাধারণ ডায়েরী করা হয়েছে। গত অক্টোবরেও এমন আরেকটি সাধারণ ডায়েরী করা হয়েছিল। তবে, এ ঘটনায় জড়িত কাউকে চিহ্নিত করা সম্ভব হয়নি। -বিবিসি বাংলা






মন্তব্য চালু নেই