মেইন ম্যেনু

সাময়িক ধৈর্যহারা হলেও, দিশেহারা হইনি : ওবায়দুল কাদের

শোলাকিয়া, হলি আর্টিসানে জঙ্গি হামলায় আমরা সাময়িক ধৈর্যহারা হয়েছি কিন্তু দিশেহারা হইনি বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। শনিবার দুপুরে আওয়ামী যুবলীগের বিজয় দিবসের আলোচনায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে এক অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, বাঙালি জাতি ঘুরে দাঁড়াতে জানে। ১৯৭১ ও ১৯৭৫ সালের পর সকল অশুভ শক্তিকে পরাজিত করে ঘুরে দাঁড়ানো জাতি আজ মাথা উঁচু করে বিশ্বের বুকে উন্নয়নের মডেল হিসেবেই পরিচিতি পেয়েছে।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে প্রশাসনের দৃঢ় সাহসিকতায় জঙ্গিবাদের উত্থানকে প্রতিহত করে দেশ এগোচ্ছে।

সাম্প্রদায়িকতা ও উগ্রবাদকে প্রতিহত করে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে সে কথা স্মরণ করে মন্ত্রী বলেন, যারা ১৯৭১ সালে একটি অকার্যকর ও ব্যর্থ রাষ্ট্র বানাতে চেয়েছিল তারা আজ নিজেরাই বিশ্বের বুকে ব্যর্থ ও অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। তারা আজ অর্থনীতি, সামাজিকভাবেও বাংলাদেশের পিছনে পড়ে আছে। সেটা সম্ভব হয়েছে দেশনেত্রী ও বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্যই।

তিনি বিএনপি সম্পর্কে বলেন, বিএনপিকে নিয়ে কথা না বলাই ভালো। কারণ তারা আন্দোলন ও নালিশ দুটোতেই ব্যর্থ হয়েছে। এখন তারা সংবিধান শেখাচ্ছে আওয়ামী লীগকে। জিয়াউর রহমান যখন পিস্তল ঠেকিয়ে ক্ষমতা দখল করেছিল, যখন বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করা হয়েছিল তখন সংবিধান লঙ্ঘন হয় নাই। তখন সংবিধান কোথায় ছিল। খুনিদের বিদেশে পাঠিয়ে দিয়েছিলেন তখন সংবিধান লঙ্ঘন হয় নাই। যারা সংবিধানের দোহাই দিয়ে সংবিধানকে পদে পদে রক্তাক্ত করেছেন সেই বিএনপির মুখে সংবিধান নিয়ে কথা বলা মানায় না।

জেলা পরিষদ নির্বাচন কোন সংবিধানে বেআইনি মওদুদকে প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, জেলা পরিষদ গঠন নিয়ে আপনি যখন মন্ত্রী ছিলেন তখনতো কিছু বলেননি। এখন বলছেন তা সংবিধানের পরিপন্থী।

তিনি যুবলীগকে উদ্দেশ্য করে বলেন, যেখানে ঢেউ থাকবে, তরঙ্গ থাকবে সেখানেই যুবলীগ থাকবে। তিনি বলেন, দেশের সার্বিক উন্নয়নে যুবলীগ অংশীদার। মহান বিজয়কে সুসঙ্গত করতে যে শিক্ষা ও চেতনার প্রয়োজন সেই পথটি তৈরি করছে বাংলাদেশ যুবলীগ। তাই বঙ্গবন্ধুর রেখে যাওয়া সোনার বাংলা সুযোগ্য নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাবে।

এ সময় আওয়ামী যুবলীগের ঢাকা মহানগরীর দক্ষিণের সভাপতি বিএনপির ৫ জানুয়ারির ‘গণতন্ত্র রক্ষার কালো দিবস’ পালনকে প্রতিহত করার ঘোষণা দিয়ে বলেন, বিএনপিকে কোন ভাবেই মাঠে নামতে দেয়া হবে না। তাদেরকে সব জায়গাই প্রতিহত করবে বাংলাদেশ যুবলীগ।

যুবলীগের সভাপতি ওমর ফারুক চৌধুরী আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে উদ্দেশ্য করে নারায়ণগঞ্জের নির্বাচন নিয়ে বলেন, সাড়ে তিনশ সংসদ সদস্যের মধ্যে আইভী আছেন কয়জন? আমরা ওই নির্বাচনের মতো সারা দেশের নির্বাচন চাই।

আলোচনা সভায় মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ছাড়াও বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ, যুবলীগের উত্তরের সভাপতি মইনুল হোসেন নিখিল, দক্ষিণের ইসমাইল হোসেন সম্রাট ও ঢাকা মহানগরের বিভিন্ন ওয়ার্ডের নেতারা। এর আগে সকাল থেকেই মহানগরের বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে অসংখ্য যুবলীগের নেতাকর্মী ব্যানার, ফেস্টুন নিয়ে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে এসে হাজির হন।






মন্তব্য চালু নেই