মেইন ম্যেনু

সালমান খানকে এখন ‘মামা’ বলে ডাকি: হার্শালি

এই মুহূর্তে বলিউডের সবচেয়ে আলোচিত ছবি ‘বাজরাঙ্গি ভাইজান’। নানা কারণেই ছবিটি ভারতজুড়ে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে। সুপারস্টার সালমান খানের পাশাপাশি ছবিতে সবচেয়ে আকর্ষণীয় অভিনয় করে তাক লাগিয়ে দিয়েছে ছোট্ট মেয়ে হার্শালি মালহোত্রা। ছবিটিতে হার্শালির অভিনয় দেখে মুগ্ধ পুরো বলিউড। ফলে মিডিয়ার প্রধান আকর্ষণও ‘বাজরাঙ্গি ভাইজান’-এর সেই ছোট্ট মেয়েটি। ঈদ উপলক্ষে গত ১৭ জুলাই ভারতে মুক্তি পেয়েছে কবির খানের পরিচালনায় ছবি ‘বাজরাঙ্গি ভাইজান’। মুক্তির পাঁচ দিনেই ছবিটি ১৬৯ কোটি রুপি আয়ও করেছে। যা সালমান খানের সিনেমা ক্যারিয়ারে বিরল।

ছবিটিতে সুপারস্টার অভিনেতা সালমান খান, নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকী এবং কারিনা কাপুরের অভিনয়ের পাশাপাশি আলো ফেলেছে ছোট্ট মেয়ে হার্শালি মালহোত্রা। ছবিটিতে একজন বোবা পাকিস্তানি মেয়ের ভূমিকায় অভিনয় করেও বলি পাড়ায় সবচেয়ে আলোচিত সে। ছবি মুক্তির পর ভারতীয় মিডিয়ার চোখ ছোট্ট মেয়ে হার্শালির দিকে। প্রতিনিয়ত তাকে মিডিয়ার মুখোমুখি হতে হচ্ছে। সম্প্রতি বলিউড.কমকে একটি সাক্ষাৎকার দিয়েছে হার্শালি, আর সেখানে উঠে এসেছে ছোট্ট মেয়েটির সারল্যে ভরা কথাগুলো। ‘বাজরাঙ্গি ভাইজান’-এ শ্যুটিং করার সময় তার মজার অভিজ্ঞতাগুলো শেয়ার করার পাশাপাশি অভিনেতা-অভিনেত্রীদের সাথে ঋদ্ধতার কথাও জানিয়েছে হার্শালি মালহোত্রা। বলিউড.কমে প্রকাশিত হার্শালি মালহোত্রার সাক্ষাৎকারটি পাঠকদের জন্য অনুদিত হলো।

harsha

সালমানের খানের সাথে প্রথম যখন দেখা হয়েছে, তখন কেমন লাগছিল তোমার?
হার্শালি মালহোত্রা: সালমান মামার সাথে দেখা করার আগে খুশিতে আমি লাফাচ্ছিলাম। আমি ভেতরে ভেতরে খুব উত্তেজিত ছিলাম।

সালমানের সাথে মজার কোনো ঘটনা আছে?
হা.মা: খুব মজায় মজায় সালমান মামার সাথে আমি কাজ করেছি। প্রথমে যখন কাজ শুরু করেছিলাম, তখন তাকে আঙ্কেল বলে ডাকতাম। এখন তাকে আমি মামা বলে ডাকি। ‘বাজরাঙ্গি ভাইজান’ ছবিটির শেষ দৃশ্যে তাকে আমি বলে ডাকি, তারপর থেকেই সালমান এখন আমার মামা!

শ্যুটিংয়ের সেটে সালমানের সাথে কি কখনো খেলার সময় পেয়েছ?
হা.মা: হ্যাঁ, অবশ্যই। আমি যখনই তাকে বলেছি, সে আমার সাথে খেলেছে। আমরা অনেকবার টেবিল টেনিস খেলেছি, এবং বহুবার তাকে হারিয়ে আমি জিতেছি!

কিন্তু কে বেশী আদর করেছে তোমাকে, সালমান মামা, কবির আঙ্কেল নাকি কারিনা ম্যাম?
হা.মা: শ্যুটিংয়েতো সবাই ব্যস্ত থাকে। কিন্তু কবির আঙ্কেল এবং সালমান মামা আমাকে অনেক আদর করেছে, তারা আমার বিশেষ যত্ন নিয়েছে; খোঁজখবর রেখেছে।

salman-harsha

শ্যুটিংয়ের সময় কোনো মজার অভিজ্ঞতা থাকলে বলো…
হা.মা: খুব মজা করতে করতে আমরা শ্যুটিং শেষ করেছি। বিশেষ করে কাশ্মীরে তুষারপাতের মধ্যে আমরা কাজ করার সময় খুব মজা করেছি।

তোমার কোনো বন্ধু কি ছবিটি দেখেছে?
হা.মা:  না, আমার কোনো বন্ধুই এখনও ছবিটি দেখেনি। তবে খুব শিগগিরই তারা দেখবে।

বলিউডে কাকে তোমার সবচেয়ে বেশি ভালো লাগে?
হা.মা: সালমান মামা ছাড়া কারিনা কাপুর, ক্যাটরিনা কাইফ, নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকী এবং সোনাক্ষি সিনহাকে ভালোবাসি। তাদেরকে ভালো লাগে।

সেটে দুষ্টুমি করোনি?
হা.মা: না (যদিও পাশে বসে থেকে তার মা দুষ্টুমির অঙ্গভঙ্গি করে ছবির সেটে তাকে দুষ্টুমির কথা মনে করিয়ে দিচ্ছিলো), হ্যাঁ, একটু দুষ্টুমি করেছি। সালমান মামা এবং টিমের অনেককে স্নো-বল ছুঁড়ে দিতাম, কিন্তু কেউই রাগ করেনি।

শুনেছি, মারামারির দৃশ্যগুলো তুমি পছন্দ করতে না, এটা কি সত্যি?
হা.মা: হ্যাঁ, যারা মারামারি করতো, তাদের আমি পছন্দ করতাম না। আমি কবির আঙ্কেলকে বলেছি, ওইসব দৃশ্য দেখলে আমার ভয় হতো।(এটুকু বলে হার্শালি মালহোত্রা কথা থামিয়ে দেয় এবং তার মায়ের কানে কানে চকলেট দিতে বলে। তার মা দৌড়ে গিয়ে চকলেট নিয়ে আসে এবং হার্শার মুখে পুড়ে দেয়)।

ha-ma

তুমি চকলেট খুব পছন্দ কর, তাই না?
হা.মা: হ্যাঁ, চকলেট আমি খুব পছন্দ করি। স্পেশালি ডেইরি মিল্ক সিল্ক আমার খুব পছন্দ। সালমান মামা এবং কবির আঙ্কেল আমাকে প্রচুর চকলেট দিত।

তুমি বলিউডে আর কার সাথে অভিনয় করতে চাও?
হা.মা: আমি ক্যাটরিনা কাইফের সাথে কাজ করতে চাই।

বড় হয়ে তুমি কী করতে চাও?
হা.মা: আমি একজন সুপারস্টার হতে চাই। (এমন প্রশ্নে হার্শার মা বলেন, ‘যখন হার্শাকে একা একা এই প্রশ্নটা করা হয় তখন সে আমাকে বলে ‘সুপারস্টার’ হবে।)






মন্তব্য চালু নেই