মেইন ম্যেনু

সিরিয়ায় ছোঁড়া রুশ ক্ষেপনাস্ত্র ইরানে বিধ্বস্ত!

সিরিয়ায় সুন্নিপন্থী সশস্ত্র সংগঠন আইএস-কে লক্ষ্য করে ছোঁড়া চারটি রুশ ক্ষেপনাস্ত্র ইরানে পড়েছে বলে দাবি করছে যুক্তরাষ্ট্র। বৃহস্পতিবার দুই মার্কিন কর্মকর্তার বরাতে সিএনএন খবরটি নিশ্চিত করলেও রুশ কর্মকর্তাদের বরাতে এটি ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়েছে ইরানের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম।

একইভাবে রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে রুশ বার্তা সংস্থা আরআইএ’র বরাতে বলা হয়, তাদের নিক্ষিপ্ত সব ক্ষেপণাস্ত্র সিরিয়ায় লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম হয়েছে বলে দাবি করেছে রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।

সিএনএন এর প্রতিবেদনে এক কর্মকর্তা দাবি করেন এ ঘটনায় হতাহতের ঘটনা ঘটতে পারে। অপরজন এখনও কিছু জানেন না বলে জানান।

প্রায় ১৫০০ কিলোমিটার দূরে কাস্পিয়ান সাগরে নৌবহর থেকে সিরিয়ায় আইএসসহ সশস্ত্র বিদ্রোহী গ্রুপগুলোর স্থাপনা লক্ষ্য করে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করছে রাশিয়া। ইরান ও ইরাক পেরিয়ে সেগুলোকে সিরিয়ায় পৌঁছাতে হয়। সিএনএনের প্রতিবেদনের দাবি, রাশিয়া ‘কালিবার’ নামের তুলনামূলক নতুন একটি ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করছে। এই ক্ষেপণাস্ত্র যুদ্ধে এবারই তারা প্রথম ব্যবহার করছে।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু এক টেলিভিশন অনুষ্ঠানে প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে জানান, বুধবার রাতে রুশ নৌবাহিনীর চারটি যুদ্ধজাহাজ থেকে সিরিয়ায় ইসলামিক স্টেট গোষ্ঠীর অবস্থান লক্ষ্য করে ২৬টি ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়েছে। সবগুলো ক্ষেপণাস্ত্র লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম হয়েছে এবং তাতে কোনো বেসামরিক নাগরিক হতাহত হননি বলে দাবি করেন তিনি। এ সময় পুতিন প্রতিরক্ষামন্ত্রীকে অভিনন্দন জানান বলে সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়।

ইরানের সংবাদ সংস্থা ইরনা বলছে, সিএনএন এর রিপোর্ট ভিত্তিহীন। রুশ কর্মকর্তাদের বরাতে তারা দাবি করে, সবগুলো হামলা লক্ষ্যবস্তুকে উদ্দেশ্য করে করা হয়েছে।

রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, কাস্পিয়ান সাগরে তাদের যুদ্ধজাহাজ থেকে ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে সিরিয়ায় জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেটের (আইএস) নিয়ন্ত্রণাধীন বিভিন্ন কলকারখানা, গোলাবারুদ রাখার জায়গা, প্রশিক্ষণ ও নির্দেশনা কেন্দ্র ধ্বংস হয়েছে।

সূত্র: সিএনএন, রয়টার্স, ইরনা



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই