মেইন ম্যেনু

সিরিয়ায় ধ্বংসস্তুপ থেকে উদ্ধার নবজাতক কাঁদালো বিশ্ববাসীকে

মাত্র কয়েক সেকেন্ডের একটি ভিডিয়ো আরও একবার চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল সিরিয়ায় সাধারণ নাগরিকদের কী অসহনীয়, অসহায় অবস্থা। মৃত্যু তার বিষাক্ত ফণা তুলেই রেখেছে। একরত্তি শিশুরও তার হাত থেকে রেহাই নেই।

মর্মস্পর্শী এই ভিডিয়োয় ধরা পড়েছে একজন ‘হোয়াইট হেলমেট’ স্বেচ্ছাসেবী একটি ধুলোমাখা শিশুকে কোলে নিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েছেন। দীর্ঘ কয়েক ঘণ্টা ধরে অপারেশন চালিয়ে আহত শিশুটিকে ধ্বংসস্তূপ থেকে তারা বের করে আনেন।

ইউটিউবে পোস্ট করা বাচ্চাটির এই ভিডিয়োর সঙ্গে কিছুদিন আগে ভাইরাল হয়ে ছড়িয়ে পড়া আরও এক ভিডিয়োর অনেক মিল রয়েছে। সেই বাচ্চাটি ঘটনার আকস্মিকতায়, মৃত্যুমুখ থেকে ফিরে নির্বাক হয়ে পড়েছিল। এই একরত্তি শিশুটিরও বোধ হয়নি। তবে, ক্ষতের যন্ত্রণা বেরিয়ে এসেছে বাচ্চাটির কান্নায়।

গত বৃহস্পতিবার সিরিয়ার ইদলিব প্রদেশে তোলা এই ভিডিয়োটি। হোয়াইট হেলমেটের স্বেচ্ছাসেবীরা অভিযোগ করেন, আলেপ্পোয় তারাই এখন সিরিয়া সরকারের নিশানায়। তাদের দাবি, পূর্ব আলেপ্পোয় আকাশ থেকে রীতিমতো বোমাবর্ষণ চলছে।

ডাক্তারদের হিসাব অনুযায়ী, ২১ সেপ্টেম্বর থেকে ২৬ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সিরিয়ার আলেপ্পোয় কমপক্ষে ২৭৮ জন নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে ৯৬ জনই শিশু। হাসপাতালগুলোও বিমানহামলার হাত থেকে রেহাই পাচ্ছে না।

সিরিয়া সরকারের অবশ্য এ নিয়ে কোনও মাথাব্যথা নেই। কোনও আবেদন নিবেদনই তারা গ্রাহ্য করেনি। মার্কিন রাষ্ট্রদূত সামান্থা পাওয়ার এই অবস্থার জন্য আসাদ ও রাশিয়াকে দায়ী করেন। তার প্রতিক্রিয়া, বাচ্চারা তো আর জঙ্গি নয়! উদ্ধারকারীরাও নয়। টেররিস্ট নয় হাসপাতালের কর্মীরাও।

তা সত্ত্বেও এদের উপর হামলা কেন? ইন্ডিয়া টাইমস






মন্তব্য চালু নেই