মেইন ম্যেনু

সিসিলি ভ্রমণের আগে মনে রাখুন এই বিষয়গুলো

ইতালিতে ঘুরতে যাওয়ার কথা উঠলেই আমাদের মনে ভেসে ওঠে রোম বা নেপলসের কথা। তাও আবার সেখানকার নির্দিষ্ট কিছু স্থাপনা ও স্থান, এই যেমন- ভিসুভিয়াস বা কলোসিয়াম, এগুলো ঘিরেই থাকে আমাদের সব চিন্তাভাবনা। কিন্তু বাস্তবে ইতালি এতটাও ছোট নয়। নির্দিষ্ট এই স্থানগুলোতেই যদি হয় আপনার ইতালি ভ্রমণের সমাপ্তি তাহলে অসম্ভব সুন্দর একটি গ্রাম্য, ঐতিহাসিক ও সৌন্দর্যে ভরপুর স্থানকে দেখার সুযোগ হারাবেন আপনি। আর এই স্থানটির নাম হল সিসিলি। কী নেই এখানে? স্থাপনা, তাদের ঐতিহাসিক পটভূমি, বিশাল আয়তন, স্বচ্ছ সাগরের পানি, অপরূপ সৌন্দর্য- এর সবটাই আপনি পাবেন সিসিলিতে গেলে। তবে সিসিলির সবটা ভালোলাগাকে পেতে চাইলে এখানে ভ্রমণের আগেই আপনাকে জেনে নিতে হবে সিসিলিকে নিয়ে কিছু কথা। যেগুলো আপনার ভ্রমণের আনন্দকে বাড়িয়ে তুলবে বহুগুণে। চলুন তবে জেনে আসি সিসিলির সেই অবশ্যই জানার মতন তথ্যগুলোকে।

১. পালেরমোর আকর্ষণীয় স্থান

সিসিলির ভেতরে রয়েছে পালেরমো, কাতানিয়া, তাওরমিনা, সাইরাকিউজ, এওলিনা দ্বীপ ও আগ্নেয়গিরি মাউন্ট এতনা। তবে এদের ভেতরে আপনার গন্তব্য যদি হয় পালোরমো তাহলে একবার হলেও ঘুরে আসুন এই স্থানগুলো থেকে। স্থানগুলো হচ্ছে- নরম্যান প্রাসাদ, প্যালেটাইন চ্যাপেল, ক্যাপুচিনের কাটাকম্ব, মার্তোরানা চার্চ, ক্যাথেড্রাল অব পালেরমো, টিট্রো মাসিমো এবং বোটানিকাল গর্ডেন। আরাগোনিজ রাজত্বের সময় কাতানিয়া ছিল সিসিলির রাজধানী। তাই প্রয়োজনের তাগিদেই এই স্থানটির সাথে জড়িয়ে গিয়েছে সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ও সিসিলির গুরুত্বপূর্ণ কিছু ইতিহাস ও ঐতিহাসিক স্থান। এর ঐতিহাসিক স্থান বারাক বর্তমানে ইউনেস্কোর বিশ্বঐতিহ্যবাহী স্থানের ভেতরে অন্যতম।

২. সাইরাকিউজ ও সমুদ্রের গান

সিসিলির সবচাইতে জনপ্রিয় স্থান সাইরাকিউজে গেলে আপনি পাবেন দ্যা ইয়ার অব ডাইনোসিয়াস, প্রাচীন তাওরমিনা থিয়েটার, পাওলো আরসি জাদুঘর, সাইরাকিউজ রোমান অ্যাম্ফিথিয়েটার, ক্যাথেড্রাল অব সাইরাকিউজ ইত্যাদি দেখার সুযোগ। একটা সময় এখানে সব দেশের মানুষ এসে ব্যবসা করতো। ফলে এখানে এলে আপনি পাবেন বিভিন্ন দেশের চিহ্নগুলোকেও। তবে সিসিলির মূল আকর্ষণ নীল সমুদ্র আর এওলিনা দ্বীপে পৌঁছতে গেলে তাওরমিনা হবে আপনার সঠিক স্থান যেখান থেকে খুব সহজেই ঢেউয়ের দ্বীপে পৌঁছতে পারবেন আপনি।

৩. ঢেউএর দ্বীপ

ভূমধ্যসাগর আর আয়োনিয়ান সমুদ্রের স্রোত একত্রে মিলিত হতে দেখা যায় এই দ্বীপ থেকে। তাই একে ঢেউয়ের দ্বীপ বলেই ডাকতে ভালোবাসেন অনেকে। সিসিলির এই অংশে এলে প্রকৃতি আর সমুদ্রের নোনতা বাতাসের ছোঁয়া পাবেন আপনি।

৪. সিসিলিতে কী খাবেন

সিসিলিতে কী খাবেন সেটা নিয়ে একেবারেই ভাবতে হবেনা আপনাকে। প্রচুর পরিমাণ উন্নতমানের ওয়াইনের পাশাপাশি এখানে এলে আপনি পাবের ঐতিহ্যবাহী প্রচুর খাবার-দাবার। এদের ভেতরে রয়েছে এগপ্ল্যান্ট পারমিজিয়ানা, সিসিলিয়ান ক্যানোলি, কাসাতা সিসিলিয়ানা কেক, আমন্ড পেস্ট্রিসহ নানা পদের খাবার।

কী ভাবছেন? তাহলে আর দেরী কেন? এবার ছুটিতে ঘুরে আসুন তাহলে ইতালি সবচাইতে দক্ষিণে অবস্থিত এই সিসিলি থেকে।






মন্তব্য চালু নেই