মেইন ম্যেনু

সীমান্তে কমান্ড্যান্ট ফোর্স মোতায়েন করেছে ভারত

বাংলাদেশ ও ভারতের সীমান্তে কমান্ড্যান্ট ফোর্স মোতায়েন করেছে ভারত। রাজধানীর গুলশান ট্রাজেডির রাত থেকে দু’দেশের পক্ষ থেকেই সীমান্তে রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়। দু’দেশই সীমান্তে স্মরণকালের সবোর্চ্চ সতর্কতা ও নিরাপত্তা জোরদার করেছে।

বাংলাদেশের সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর (বিজিবি) নিজস্ব গোয়েন্দা ইউনিটের শীর্ষ কর্মকর্তাদের একজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘গুলশান ট্রাজেডির রাত থেকেই বাংলাদেশ সীমান্তে রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়। ভারতও একই সিদ্ধান্ত নেয়।’

তিনি বলেন, ‘বিএসএফ’র সদর দফতরে থাকা কমান্ড্যান্ট ফোর্সকে সীমান্ত অঞ্চলে দ্রুত চলে যাওয়ার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে।’

ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘এ ফোর্স ইতোমধ্যে সীমান্ত অঞ্চলে পৌঁছে গেছে। সীমান্তে খুব বড় ধরনের সংকট ছাড়া এই কমান্ড্যান্ট ফোর্সকে বিএসএফ ব্যবহার করে না। বিজিবিও সীমান্তে কড়া নজর রাখছে।’

এছাড়া ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) তাদের সীমান্তে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা থেকে সাধারণ জওয়ানের সংখ্যাও কয়েকগুন বৃদ্ধি করেছে বলে জানা গেছে।

বিজিবি’র অপর এক গোয়েন্দা কর্মকর্তা জানান, ভারত থেকে বৈধ পথে আমদানী করা পণ্যের উপরও নজর রাখা হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে প্রয়োজনে কাস্টমসের গোয়েন্দা শাখারও সহযোগিতা নিচ্ছে বিজিবি। বিশেষ করে আমদানি করা কেমিক্যালসহ দাহ্য পণ্যের ওপর নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।

কাস্টমসের একজন গোয়েন্দা কর্মকর্তা জানান, আমদানি করা প্রতিটি কন্টেইনার ও ট্রাক আগের যে কোনো বারের তুলনায় অনেক বেশি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। পরীক্ষার জন্য আধুনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা হচ্ছে। বিশেষ করে, কেমিক্যাল জাতীয় পণ্য পরীক্ষার পর চুড়ান্ত রিপোর্ট হাতে না পাওয়া পর্যন্ত শেডে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না।

তিনি জানান, শুধু বেনাপোল নয় দেশের প্রতিটি স্থলবন্দরে একই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

প্রতিটি বন্দরে প্রয়োজন অনুযায়ী শক্তিশালী সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। তারপরেও সীমান্ত ও বন্দরের কোনো অংশ ক্যামেরার আওতায় না থাকলে দ্রুত ক্যামেরা স্থাপন করা হচ্ছে-বললেন বিজিবি ও কাস্টমস’র অন্যতম শীর্ষ দুই কর্মকর্তা।

তারা বলেন, ‘কাস্টমস ও বিজিবি’র পৃথক সিসিটিভি রয়েছে। তবে প্রয়োজনে দু’দফতর একে অন্যকে সহায়তা দিতে প্রস্তুত।’

বিজিবি’র গোয়েন্দা কর্মকর্তা জানান, সার্বক্ষণিক ভিডিও ফুটেজ পর্যবেক্ষণ করছেন প্রশিক্ষিত গোয়েন্দা ইউনিট।

এদিকে বিজিবির ২৬ ব্যাটালিয়নের কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কর্ণেল জাহাঙ্গীর হোসেন সীমান্ত পরিস্থিতি নিয়ে বলেন, ‘হেড কোয়াটারের নিদের্শেই নজরদারি বৃদ্ধি করা হয়েছে। জারি করা হয়েছে সর্বোচ্চ সতর্কতা।’

বিএসএফ সীমান্তে কমান্ড্যান্ট ফোর্স মোতায়েন করেছে-এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এটা তাদের অভ্যন্তরীন বিষয়। তবে শুনেছি এ ধরনের তথ্য।’

তিনি বলেন, “ভারতও তাদের সীমান্তে ‘রেড অ্যালার্ট’ জারি করেছে”। এর বেশি তিনি কোনো তথ্য দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন তিনি।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ ভারতের ৪ হাজার ৪২৪ কিলোমিটার সীমান্তের মধ্যে দক্ষিণ-পশ্চিম ও উত্তরাঞ্চলেই রয়েছে ২ হাজার ২২৬ কিলোমিটার সীমান্ত।






মন্তব্য চালু নেই