মেইন ম্যেনু

সুখী দাম্পত্য চাইলে আলাদা বিছানা!

স্বামী-স্ত্রী একসঙ্গে থাকার ব্যাপারটি আমাদের সমাজে দীর্ঘকাল ধরেই চলে আসছে। একসঙ্গে থাকলে আন্তরিকতা ও ভালোবাসা বাড়ে বলে জানি। সম্প্রতি এই ব্যাপারটির ঘোর বিরোধিতা করেছেন ব্রিটেনের টাইম পত্রিকার সাংবাদিক ও কলাম লেখক সারাহ ভিনে। অবশ্য তিনি স্বামী-স্ত্রীর আলাদা শয়ন কক্ষের থাকার ব্যাপারে বেশ জোরালো যুক্তিও দিয়েছেন।

সারাহ ভিনে যুক্তরাজ্য কনজারভেটিভ দলের সাংসদ ও বিচার বিভাগের সচিব মাইকেল গোভের স্ত্রী। তারা আলাদা শয়ন কক্ষে থাকেন এবং তাদের দুটি সন্তান রয়েছে। বাস্তব জীবনে নিজেদের সুখী দম্পতি বলে দাবি করেছেন সারাহ।

সম্প্রতি যুক্তরাজ্যভিত্তিক পত্রিকা ডেইল মেইলের অনলাইন সংস্করণে সারাহ ভিনের এ সংক্রান্ত একটি একটি কলাম প্রকাশিত হয়। কলামের শিরোনাম ছিল ‘দুঃখিত বন্ধুরা, নারীরা সেক্সের চেয়ে ঘুমোতে বেশি পছন্দ করে।’

প্রতি দশ নারীর মধ্যে চারজনই নারীই ঘুমের মধ্যে তথাকথির যৌন সুখ পায়। বলা হয়ে থাকে, স্বপ্নের মধ্যে আকর্ষণীয় বিষয়। নতুন এক গবেষণায় এই তথ্য উঠে এসেছে।

সারাহ বলেন, আমি এ ধরনের আনন্দ কখনও পেয়েছিলাম কি না মনে করতে পারছি না। তবে আমি এইটুকু জানি, অধিকাংশ নারী ঘুম প্রত্যাশা করে। ঘুমের মধ্যেই নারীরা প্রচণ্ড উত্তেজনা অনুভব করে। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রচণ্ড ভালোবাসা থাকলেই সারা রাত এক বিছানায় থাকে। আমি এই ব্যাপারে একমত নই। স্বামী-স্ত্রী একসঙ্গে থাকার ব্যাপারটি খুবই বাজে ধারণা।

সারাহ ভিনে বলেন, স্বামী-স্ত্রী একসঙ্গে একই বিছানা থাকার মানে হচ্ছে, স্বামীর নাক ডাকা সহ্য করা, বাচ্চাদের কান্নাকাটি, খুব সকালে বাচ্চাদের স্কুলে নিয়ে যাওয়ার চিন্তা ইত্যাদি। এই অবস্থায় গভীর নিদ্রায় যাওয়া একজন নারীর পক্ষে আসলেই কষ্টকর।

সারাহ আরও বলেন, যখন আপনার বয়স কম এবং কারো যত্ন নিতে হয় না তাহলে ঠিক আছে। কিন্তু যখন আপনার একটি বাচ্চা হবে তখন একসঙ্গে থাকাটা আসলেই অবাস্তব। বিয়ের পর ধীরে ধীরে স্বামী-স্ত্রী বিছানায় আনন্দ উপভোগের চেয়ে লেপ বা কম্বল নিয়ে টানাটানি হয় বেশি। রানি ভিক্টোরিয়া ঠিকই বলেছিলেন, সুখী ও সমৃদ্ধ দাম্পত্য জীবনের মূল চাবিকাঠি হচ্ছে, আলাদা শয়নকক্ষে থাকা।

সারাহ আরও বলেন, নারীর জন্য সেক্স হচ্ছে মস্তিষ্কসংক্রান্ত ব্যাপার। সেক্সের জন্য নারীদের নিরাপদ, আরামদায়ক, প্রশান্তিময় পরিবেশ দরকার। একজন নারী যদি ক্লান্ত থাকে তখন তার সেক্সের প্রতি আগ্রহ থাকবে না। প্রতিদিন বাসার কাজকর্ম, বাচ্চাদের সামলানো, রান্নাবান্না ইত্যাদি কাজকর্ম করে তারা প্রচুর ক্লান্ত হয়ে পড়ে।

সারাহ ভিনে বলেন, পুরুষদের চেয়ে নারীদের সেক্সের প্রতি আগ্রহ বেশি। যদি তারা শারীরিক ও মানসিক সুস্থতা অনুভব করে। ৪০ জনের একটি গ্রুপ তৈরি করুন। আমি নিশ্চয়তা দিয়ে বলতে পারি, তাদের কথাবার্তা ঘুরেফিরে সেক্সের মধ্যেই চলে আসবে।






মন্তব্য চালু নেই