মেইন ম্যেনু

সুন্দরবনের বনদস্যু মাস্টার বাহিনীর আত্মসর্মপণ

সুন্দরবন দাপিয়ে বেড়ানো একাধিক বনদস্যু তাদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে অস্ত্রসহ আত্মসর্মপণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। রোববার সকালে এরই অংশ হিসেবে বনদস্যু মাস্টার বাহিনীর প্রধানসহ ৭ সদস্যের একটি দল অর্ধশত অস্ত্র ও গুলিসহ র্যাব এর কাছে আত্মসর্মপণ করেছে।

আজ দুপুরে মংলায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর আসাদুজ্জামান কামালের উপস্থিতিতেই মাস্টার বাহিনী আনুষ্ঠানিকভাবে আত্মসর্মপণ করবে এ তথ্য র্যাব ৮ এর জোনাল কমান্ডার ফরিদুল আলমের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা হয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে দুপুর দেড়টার দিকে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রথমবারের মতো সুন্দরবনের কোনো বনদস্যুর এটাই প্রথম আত্মসর্মপণ হবে।

স্বাধীনতার পর বিগত দুই দশক ধরে সুন্দরবন থেকে বনদস্যুরা জেলেদের অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায়, সুন্দরবন সংলগ্ন বন অফিসে হানা দিয়ে অস্ত্র ছিনিয়ে নেয়া, জেলে বাওয়ালীদের কাছ থেকে দাবিকৃত টাকা না পেয়ে জবাই করে তাদের মরদেহ নদীতে ভাসিয়ে দেয়া, গুলি করে হত্যা আর দস্যুতা ছিল নিত্যনৈমিতিক ব্যাপার।

তবে সম্প্রতি সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকায় বনদস্যুদের অপতৎপরতা রুখতে বিশেষ করে র্যাব-৮ এর ভূমিকা ছিল লক্ষণীয়। সরকারের কঠোরতার কারণে গত ৫ বছরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, র্যাব, কোস্টগার্ড ও পুলিশের একাধিক টিমের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে প্রাণ হারিয়েছে অন্তত অর্ধশতাধিক বনদস্যু।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ অবস্থায় সুন্দরবন এলাকার কুখ্যাত বনদস্যু রাজু বাহিনীসহ অনেকেই আত্মসর্মপণের পথে আসতে চেষ্ঠা চালায়। তবে নানা প্রতিবন্ধকতায় বিগত সময়ে ওই বনদস্যুরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আত্মসর্মপণ করতে পারেনি।

এদিকে, প্রথমবাবের মতো সুন্দরবনের কোনো বনদস্যু দলের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আত্মসর্মপণের এ ঘটনাকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন। তাদের মতো মাস্টার বাহিনীর পথ অনুসরণ করে অন্যান্য বনদস্যু বা জলদস্যুরা তাদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে অবৈধ অন্ত্রসহ আত্মসর্মপণ করবে।

এ বিষয়ে বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, বনদস্যুরা দসুত্যা বাদ দিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে যে উদ্যোগ নিয়েছে তাকে সাদুবাদ জানাই। তিনি জানান, বনদস্যু ওই বাহিনী স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে আত্মসর্মপণের আবেদন জানান।

তারই পরিপ্রেক্ষিতে আজ রোববার দুপুরে মংলায় আনুষ্ঠানিকভাবে এ অস্ত্র ও দস্যুদলের আত্মসর্মপণের কথা রয়েছে। তিনি বলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর নির্দেশনার পর তাদের পুর্নবাসনের ব্যাপারে বাগেরহাট জেলা প্রশাসন পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে প্রস্তুত রয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই