মেইন ম্যেনু

সুন্দরবনের ১৪ জলদস্যুর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আত্মসমর্পণ

সুন্দরবনের কুখ্যাত জলদস্যু শান্ত বাহিনী ও আলম বাহিনীর প্রধানসহ ১৪ সদস্য অস্ত্র ও গোলাবারুদ নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আত্মসমর্পণ করেছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বরিশাল র্যাব-৮ এর কার্যালয়ে ১৪ বনদস্যু ২০টি দেশি-বিদেশি আগ্নেয়াস্ত্র ও ১ হাজার ৮ রাউন্ড গোলা বারুদসহ স্বরাষ্টমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের কাছে আত্মসমর্পণ করে।

আত্মসমর্পণ করা শান্ত বাহিনীর সদস্যরা হলেন, মো. আব্দুল বারেক তালুকদার শান্ত (৪৮), মো. মনির হাওলাদার (৪৫), মো. দুলাল মোল্লা ভান্ডারী (৪০), মো. ফরিদ হাওলাদার (২৬), মো. আনিছুর রহমান মোল্লা (৩৫), মো. বশির আহমেদ শেখ (৪৭), মো. ফরিদ গাজী (৩৮), মো. মোস্তফা শেখ (৪৬), মো. নুরুল ইসলাম (৪৪) এবং মো. খোরশেদ শেখ (৫২)।

অপরদিকে আলম বাহিনীর সদস্যরা হলেন, মো. আলম সরদার (৩৪), মো. হালিম গাজী (২৬), মো. আবু বক্কর সিদ্দিক (২৭), এবং মো. আছাদুজ্জামান (১৮),

এসময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, যারা দস্যুবৃত্তি ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যেতে আত্মসমর্পণ করেছেন তাদের আইনানুগ সকল ধরনের সহযোগিতা করা হবে। যারা এখনো জঙ্গিবাদ, জলদস্যু, বনদস্যুসহ অন্যান্য অপরাধের সঙ্গে জড়িত রয়েছে তাদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার আহ্বান জানান তিনি।

সুন্দরবন ও তৎসংলগ্ন এলাকার নিরাপত্তায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সক্ষমতা বৃদ্ধি ও জনবল বৃদ্ধি করা হবে বলেও তিনি বলেন।

অনুষ্ঠানে র্যাবের মহাপরিচালক বেনজির আহমেদ বলেন, যে সকল জলদস্যু আত্মসমর্পণ করেছে তাদের মধ্যে যাদের বিরুদ্ধে হত্যা ও ধর্ষণ মামলা নেই তাদেরকে দ্রুত আইনি পন্থায় স্বাভাবিক জীবন ফিরিয়ে আনা হবে।

এছাড়া যারা এখনো আত্মসমর্পণ করেনি তাদেরকে আত্মসমর্পণের আহ্বান জানান। তিনি আরো বলেন, ইতোপূর্বে যে সকল জলদস্যু আত্মসমর্পণ করেছে তারা সকলে জামিনে রয়েছে।

র্যাব-৮ এর উপ-অধিনায়ক মেজর আদনান কবির জানান, গত ৭ সেপ্টেম্বর সুন্দরবনের সুখপাড়া খাল এলাকায় অভিযান চালানো হয়। এ সময় আব্দুল বারেক তালুকদার শান্ত তার দলের ১০ সদস্যসহ সেখানে অবস্থান করছিল। র্যাব দেখার সঙ্গে সঙ্গে শান্তর নেতৃত্বে তার দলের সদস্যরা হাত উচিয়ে আত্মসমর্পণ করে।

একই দিন সুখপাড়া খালের অপর একটি স্থানে আলম সরদার তার বাহিনীর ৩ সদস্য নিয়ে আত্মসমর্পণ করে। জলদস্যুর প্রধান শান্ত ও আলম বাহিনীর নিকট থেকে উদ্ধার করা হয় ১১টি বিদেশি বন্দুক, ৫টি এয়ার রাইফেল, ২টি ওয়ান শুটার গান, ২টি কাটা রাইফেল এবং এক হাজার রাউন্ড বিভিন্ন অস্ত্রের গুলি।

বৃহস্পতিবার আত্মসমর্পণকৃত জলদস্যুদের বরিশাল র্যাব-৮ কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয়। সেখানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নিকট অস্ত্র ও গোলাবারুদ জমা দিয়ে তারা স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যাওয়ার অঙ্গীকার করেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তাদেরকে আইনি প্রক্রিয়ায় স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যেতে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, র্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক আনোয়ার আরিফ খান, সংসদ সদস্য তালুকদার মো. ইউনুস, শেখ মো. টিপু সুলতান ও বরিশালের জেলা প্রশাসক ড. গাজী মো. সাইফুজ্জামান, পুলিশ কমিশনার এসএম রুহুল আমিন, ভারপ্রাপ্ত ডিআইজি আকরাম হোসেন ও র্যাব-৮ এর অধিানয়ক লেফটেনেন্ট কর্নেল ইফতেখারুল মাবুদসহ অন্যরা।






মন্তব্য চালু নেই