মেইন ম্যেনু

সুন্দরী নারী না পেয়ে আইএস থেকে বেরিয়ে আসছে জঙ্গিরা

এত এত তরুণ, শিক্ষিত ছেলেপুলে, আইসিসে যাচ্ছে কেন? শুধুই কি ইসলামের টানে? ইসলামিক স্টেট-এর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে? বিশ্ব-গোয়েন্দারা তা নিয়ে কাটাছেঁড়া করার আগে, দলছুট আইসিস জঙ্গিরাই হাটে হাঁড়ি ভাঙতে শুরু করেছে।

দামি গাড়ি, বিলাসী জীবন, মেয়ে নিয়ে মোচ্ছব– এসবই ছিল আইসিসে যোগ দেয়ানোর টোপ। কোনও নীতি-আদর্শ নয়, এই ‘জিহাদিস্ট ইউটোপিয়া’র টানেই প্রচুর ছেলেপুলে যোগ দিয়েছে আইসিসে। কিন্তু, এখন নিরাশ হয়ে তারাই বেরিয়ে আসছে।

এত যে খুন, বীভত্‍‌স্য হত্যা, শিরশ্ছেদ, ঝলসে মারা সবই তারা করেছে, নির্বিকার চিত্তে। কারণ, এসব না-করলে দামি গাড়িতে চড়ার স্বপ্ন অধরাই থেকে যাবে। প্রতিশ্রুতি মতো টাকা তারা পাবে না। পাবে না অসহায় নারীর ওপর নিজের পৌরুষ জাহির করার সুযোগও। সুন্দরী ইয়াজিদি যুবতী না পেয়ে তারাই এখন দল ত্যাগ করছে।

কিন্তু, কিছু দিন আইসিসের সঙ্গে ঘর করে এরা বুঝে গিয়েছে, সবটাই ফাঁকা আওয়াজ। মিথ্যে টোপ দিয়ে দলে লোক ভারী করছে আইসিস। গোয়েন্দা সূত্রে খবর, গত বছরের জানুয়ারি থেকে কম করে ৫৮জন আইসিস ছেড়ে প্রকাশ্যে এসব বলতে শুরু করেছে। যাদের বক্তব্যের সারমর্ম একই। অর্থাত্‍ দামি গাড়ি-বাড়ি আয়েশি জীবনের স্বপ্ন দেখিয়েই দলে টেনেছিল আইসিস। গোয়েন্দাদের দাবি, একই কারণে আরও লোকজনও আইসিস ছেড়ে বেরিয়ে যাবে।

দলছুটদের বক্তব্য, বিলাসী জীবন দূর অস্ত, কোয়ালিটি লাইফের এককণাও তারা পায়নি। যে যৌনদাসীর গল্প শুনেছিল, তা-ও গল্পই থেকে যায়। নিজেদের ‘ভুল’ বুঝেই তারা আইসিস ছেড়ে বেরিয়ে আসে।

লন্ডনের ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর দ্য স্টাডি অফ র্যাডিকালাইজেশন অ্যান্ড পলিটিক্যাল ভায়োলেন্স (ICSR)-এ এই রিপোর্টটি প্রকাশিত হয়েছে।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই