মেইন ম্যেনু

সুস্থ থাকতে আজই রপ্ত করুন এই ৬টি অভ্যাস

সুস্বাস্থ্য পাওয়া কি খুব কঠিন সাধনার বিষয়? অনেকের ধারণা এটি দীর্ঘ পরিশ্রমের ব্যাপার। কিন্তু গবেষণায় দেখা গেছে কিছু খাদ্যভ্যাস এবং অল্প কিছু নিয়ম মেনে আপনি পেয়ে যেতে পারেন সুস্বাস্থ্য। এই অভ্যাসগুলো নিজের আয়ত্তে নিয়ে আসুন আর পেয়ে যান সুস্বাস্থ্য।

১। খাবার খাওয়ার আগে এক গ্লাস পানি পান করুন
সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হওয়ার পূর্ব শর্ত হল প্রচুর পরিমাণ পানি পান করা। প্রতিবার খাওয়ার আগে এক গ্লাস পানি পান করুন। এটি আপনার পেট কিছুটা ভরা অনুভব দেওয়ার সাথে সাথে আপনার খাবার খাওয়ার পরিমাণ কমিয়ে দিয়ে থাকে। এটি অতিরিক্ত খাবার খাওয়া থেকেও আপনাকে বিরত রাখবে।

২। খাবার চিবিয়ে খান
Dr Gillian McKeith পুষ্টিবিদ এবং You Are What You Eat লেখক পরামর্শ দেন, খাবার ২০-৩০ মিনিট ধরে ভালোভাবে চিবিয়ে খাওয়ার। এতে খাবার হজম হতে সাহায্য করবে। ভাল করে চিবিয়ে খাবার খাওয়ার ফলে এর পুষ্টিগুণ সম্পূর্ণ ভাবে শরীর শুষে নেয়। ২০০৬ সালে এক পরীক্ষায় দেখা গেছে আস্তে আস্তে চিবিয়ে খাবার খাওয়ার কারণে প্রতি বাইটে শতকরা ১০ ভাগ পর্যন্ত ক্যালরি কাটাতে সাহায্য করে।

৩। একবেলা স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার অভ্যাস
সারাদিন আপনি আপনার পছন্দ খাবার খেলেও কমপক্ষে একবেলা খাবার স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন। তা হতে পারে সকালের নাস্তা অথবা দুপুরে খাবার নয়তো রাতের খাবার। দুপুরের খাবারের সাথে খেতে পারেন সবজি, ফল অথবা চার পাঁচ রকমের বাদাম।

৪। সকালের নাস্তা করুন
কোন কারণেই সকালের নাস্তা খাওয়া বন্ধ করা উচিত নয়। গবেষণায় দেখা গেছে যারা সকালে নাস্তা গ্রহণ করে থাকেন, তারা প্রচুর পরিমাণ মিনারেল, ভিটামিন গ্রহণ করে থাকেন ফ্যাট এবং কোলেস্টেরলের তুলনায়। সকালের নাস্তা আপনাকে সারাদিনের কাজের শক্তি দিয়ে থাকে।

৫। তাড়াতাড়ি ঘুমাতে যাওয়া
আমাদের শরীর ডিটক্স হয়ে থাকে সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত এবং লিভার ডিটক্স হয়ে থাকে রাত ১ টা থেকে ৩টা পর্যন্ত। Chinese medicine practitioner Jennifer Harper-Deacon এর মতে “লিভার কাজ শুরু করার আগে আমাদের ঘুমিয়ে পড়া উচিত। এতে করে লিভার থেকে সহজে সারা শরীরে রক্ত চলাচল হয়ে থাকে। এমনকি এই সময়টিতে ক্ষতিকর টক্সিন পর্দাথ শরীর থেকে বের হয়ে থাকে। রাতে খাবার ৮টা বাজার আগে খেয়ে ফেলার পরামর্শ দিয়ে থাকেন পুষ্টিবিদ Janella Purcell।

৬। দীর্ঘশ্বাস নিন
অগভীর নিঃশ্বাস মস্তিষ্কে, রক্তে এবং কোষে পর্যাপ্ত পরিমাণ অক্সিজেন পৌঁছে দেয় না। যার কারণে এটি মনোযোগে বাধা সৃষ্টি করে, ক্লান্ত বোধ অনুভূত হয় এবং স্ট্রেস তৈরি করে থাকে। সবচেয়ে ভাল হয় দিনে কয়েকবার নাক দিয়ে আস্তে আস্তে নিঃশ্বাস গ্রহণ করুন এবং নাক দিয়ে ছেড়ে দিন। কয়েকটি নিঃশ্বাস আপনাকে রাগ কমিয়ে দিয়ে আপনাকে শান্ত করে দিবে।

এছাড়া মিষ্টি জাতীয় খাবার খাওয়া কমিয়ে দিন। চেষ্টা করুন কিছু ব্যায়াম করার। সময় করে ঘুরতে যান পরিবারকে নিয়ে। ছোট ছোট এই কাজগুলো আপনাকে সুস্বাস্থ্য দেওয়ার পাশাপাশি আপনাকে রাখবে নীরোগ সুস্থ।






মন্তব্য চালু নেই