মেইন ম্যেনু

সেই সিরীয় শিশুর খবর পড়তে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন সংবাদ উপস্থাপক

মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএনের স্টুডিওতে পেশাদারিত্বকে ছাপিয়ে শুক্রবার এক মানবিকবোধ উঁকি দিয়েছিল। বিপন্ন মানবতার প্রতীক হয়ে ওঠা সেই সিরীয় শিশু ওমরান দাকনিশের খবর পড়তে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েছিলেন এক সংবাদ উপস্থাপক।

সিএনএনের শুক্রবারের যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় দুপুরের এক বুলেটিনের ঘটনা। সংবাদ উপস্থাপন করছিলেন কেট বোল্ডুয়ান। প্রসঙ্গ ছিল সিরিয়া। সংবাদটি আলেপ্পোতে যুদ্ধবিরতির তথ্য দিয়ে শুরু হয়।

প্রতিবেদকের ভয়েস ওভারের পাশাপাশি টেলিভিশন স্ক্রিনে দেখা যায়, ওমর দাকনিশকে কোলে করে উদ্ধারকারী ক্যারাভানে তুলছেন। এ পর্যায়ে ব্যক্তিগত আবেগ ধরে রাখতে পারেননি কেট বোল্ডুয়ান।

১৭ আগস্ট বুধবার আলেপ্পো শহরে সামরিকবাহিনীর বিমান হামলায় আহত শিশুদের মধ্যে একজন পাঁচ বছরের শিশু ওমরান দাকনিশ। তার সেই ছবি ছড়িয়ে পড়ে ইন্টারনেটে।

ওই ছবিতে দেখা যায়, ওমরানের মাথা থেকে হাঁটু পর্যন্ত ধুলোতে ভরে গেছে। হামলায় ওমরান এতটা স্তব্ধ হয়ে পড়েছে যে, তার কপাল থেকে যে রক্ত ঝরছে সেদিকে তার খেয়ালই নেই।

সেই ছবিটি ইন্টারনেটে ভাইরাল হয়। তুরস্ক উপকূলে ভেসে ওঠা সিরীয় শরণার্থী শিশু আয়লানের মতো ওমরানও বিশ্ববাসীকে নাড়া দিয়েছে। বিপন্ন মানবতার প্রতীক হয়ে উঠেছে।

সেই ওমরানের বিষয়ে সংবাদ পড়তে গিয়ে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন কেট। তিনি বলেন, ‘যে বিষয়টি আমাকে সবচেয়ে হতভম্ব করেছে তা হচ্ছে, আমরা এখানে কাঁদছি, কিন্তু ওখানে কোনো কান্নাও নেই।
সে একবারের জন্যও কাঁদেনি। ছেলেটা পুরোপুরি স্তব্ধ হয়ে গেছে।’

এসব বলার সময় কেটের চোখ পানিতে ভরে ওঠে এবং তার কণ্ঠস্বর বারবার কেঁপে যায়। এ উদ্ধার অভিযানে অন্তত তিনজন নিহত হওয়ার তথ্য জানানোর পর তিনি আর সংবাদ পাঠ অব্যাহত রাখতে পারেননি।

‘ও ওমরান, ও বেঁচে আছে। আমরা আপনাদের জানাতে চাই’ বলেই খবর শেষ করেন কেট। সূত্র : দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া






মন্তব্য চালু নেই