মেইন ম্যেনু

সেতু আছে, রাস্তা নেই

চাঁদপুরে সাড়ে তিন কোটি টাকা ব্যয়ে সেতু নির্মাণ হলেও চার বছরেও নির্মিত হয়নি সড়ক। এতে মানুষের ভোগান্তি বেড়েছে, বেড়েছে ক্ষোভ।

চাঁদপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ২০১০-১১ অর্থবছরে হাজীগঞ্জ-মতলব উপজেলার সীমান্তবর্তী ছেঙ্গাতলী এলাকায় বেতাগি খালের উপর ৩১.৮৪ মিটার দীর্ঘ সেতুর কাজ শুরু হয়ে শেষ হয় ১২-১৩ অর্থবছরে। তিন কোটি ৩৪ লাখ টাকা ব্যয়ে সেতুটি নির্মাণ হলেও জনগণের কোনো উপকারে আসছে না।

অথচ অ্যাপ্রোচ সড়ক নির্মাণ হলে রামগঞ্জ-হাজীগঞ্জের বাকিলা বাজার থেকে চেঙ্গাতলী হয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের গৌরীপুরে হয়ে ঢাকা যেতে দুই ঘণ্টা সময় বাঁচবে। প্রত্যক্ষভাবে সুবিধা ভোগ করবে দুই উপজেলার সিকি কোটি মানুষ। অথচ সেতুটিতে ইতোমধ্যে শেওলা ধরে নষ্ট হতে শুরু হয়েছে।

ছেঙ্গাতলী এলাকার ছায়েদ আলী, রুস্তম মিয়া ও তমিজ শেখ বলেন, ‘ব্রিজ বাইনছে, আমাগো তো কোনো কামে আইতাছে না। রাস্তা ছাড়া ব্রিজ দিয়া কী লাভ? ব্রিজ অইছে বালা কতা, অহন রাস্তা অইলে আমাগো এলাকাডা উন্নত অইতো। সরকারের কাছে দাবি তাড়াতাড়ি যেন রাস্তাডা বানায়।’

চাঁদপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সুব্রত দত্ত জানান, ইতোমধ্যে রাস্তার ভূমি অধিগ্রহণের টাকা জেলা প্রশাসক বরাবরে হস্তান্তর করা হয়েছে। রাস্তা নির্মাণের জন্য টেন্ডার হয়ে গেছে। আশা করছি শিগগিরই কাজ শুরু হবে।

তবে কবে নাগাদ সড়কের কাজ শেষ হবে এ ব্যাপারে স্পষ্ট করে কিছুই বলতে পারেননি তিনি। দ্রুত সড়ক নির্মাণ করার দাবি ওই অঞ্চলের মানুষের।

স্থানীয়রা দ্রুত রাস্তা নির্মাণ করে সেতুটি ব্যবহারের উপযোগী করার কথা বলছে। এদিকে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বলছেন, ইতোমধ্যে ভূমি অধিগ্রহণের জন্য টাকা বরাদ্দ হয়েছে। শিগগিরই কাজ শুরু হবে।






মন্তব্য চালু নেই