মেইন ম্যেনু

সেনা স্বল্পতার কথা স্বীকার করলেন আসাদ

সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ স্বীকার করলেন, তার সেনাবাহিনীতে বর্তমানে লোকবল সঙ্কট রয়েছে। সেই সঙ্গে তিনি এও জানান, সিরিয়ার বেশ কিছু এলাকা সেনাবাহিনী এ কারণে বিদ্রোহীদের হাতে ছেড়ে দিচ্ছে যাতে তারা গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলি দখলে রাখতে পারে। রোববার টেলিভিশনে দেয়া এক ভাষণে এ কথা বলেন আসাদ।

আসাদকে গত চারবছর ধরে বিদ্রোহীদের সঙ্গে লড়াই করতে হচ্ছে। সিরিয়ার সেনাবাহিনীতে গৃহযুদ্ধের আগে তিন লাখ সেনা ছিল। দীর্ঘদিন ধরে চলা এই গৃহযুদ্ধের ফলে অনেক সেনাকে হারাতে হয়েছে সরকারি বাহিনীকে। ইতোমধ্যে আল-কায়দার সহযোগী সংগঠন নুসরা ফ্রন্টের কাছে উত্তর-পশ্চিমের প্রদেশের ইদলিবের অধিকাংশ এলাকা হারাতে হয়েছে সরকারি বাহিনীকে। সেই সঙ্গে দক্ষিণে জর্দানের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলিকে প্রধান বিদ্রোহী গ্রুপ সাউদার্ন ফ্রন্টকে ছেড়ে দিতে হয়েছে। এছাড়া চরমপন্থি সংগঠন ইসলামিক স্টেট গত মে মাসে দখল করে নিয়েছে ঐতিহাসিক শহর পালমিরা।

আসাদ তার ভাষণে বলেন, ‘অনেক সময় ভিন্ন পরিস্থিতিতে আমাদেরকে যেসব এলাকা দখলে রাখতে চাই সেজন্য অন্য এলাকা ছেড়ে দিতে হয়। আমাদেরকে অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ এলাকা নির্ধারণ করতে হয় যেগুলি সেনাবাহিনী দখলে রাখবে যাতে অন্য এলাকাগুলিকে পরাজয় স্বীকার করতে না হয়।’

আসাদ বলেন, ‘সেনাবাহিনীতে লোকবল সঙ্কট রয়েছে। তার মানে এই নয় যে আমরা পরাজয়ের কথা বলতে পারি। আমরা টিকে থাকব…সেনাবাহিনী মাতৃভূমি রক্ষায় সক্ষম।’

সম্প্রতি তার সেনাদের পিছু হটার পেছনে বিদ্রোহীদের অন্য রাষ্ট্রের সমর্থণকে দায়ী করেছেন। পশ্চিমাদের দিকে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, সিরিয়া এমন একটি যুদ্ধে লড়াই করছে যেখানে বিদ্রোহীদের বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ও ক্ষমতাশালী রাষ্ট্র সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে।

সঙ্কট নিরসনে নিজের সদিচ্ছার কথা জানিয়ে আসাদ বলেন, চলমান সংকট নিরসনে যেকোনো ইতিবাচক পদক্ষেপকে তিনি স্বাগত জানাবেন কারণ তার সরকার সহিংসতার অবসান ও শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে চায়। এজন্য তার সরকার সব ধরনের সুযোগকে কাজে লাগাতে প্রস্তুত রয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই