মেইন ম্যেনু

সেরা শিক্ষকের শিরোপা পেলেন অন্ধ স্বামী-স্ত্রী

ইন্দোরের বাসিন্দা এক দম্পত্তি নিজেদের প্রতিবন্ধকতাকে জয় করে আলোকিত করলেন অনেকের জীবন।

দৃষ্টিশক্তি নেই দু’জনেরই। কিন্তু তারা সফল শিক্ষক৷ তারা হলেন মীনা ও সঞ্জয়৷ ইন্দোরের সরকারি স্কুলগুলোর মধ্যে সেরা শিক্ষক হয়ে দেখিয়ে দিয়েছেন তারা৷

কঠোর পরিশ্রম ও সমস্যাকে জয় করে তারা ইন্দোরের ৪০ জন শিক্ষকের মধ্যে সেরার সম্মান পেলেন৷ মঙ্গলবার ইন্দোর মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন তাদের হাতে এ সম্মান তুলে দেন।

মীনা তার শিক্ষকতার ক্যারিয়ার শুরু করেন ২০০৭ সালে সানভির তেশিল দুধদিয়াতে৷ ২০১২ সালে তারা ইন্দোরে ট্রান্সফার হন।

মীনা জানান, দৃষ্টিশক্তি না থাকার কারণে প্রথম প্রথম খুবই অসুবিধায় পড়তে হতো। অনেক ছাত্রছাত্রী তার সুযোগও নিত৷ কিন্তু এখন আমরা আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে কাজ করছি৷

তিনি বলেন, তবে এখন আর পড়ুয়ারা ক্লাস নষ্ট করে না। তিনি পড়ুয়াদের মধ্যে একজনকে বলেন বইটি পড়তে। এরপর তিনি ওদের বিষয়টি বুঝিয়ে বলেন৷

মীনা সোশ্যাল সায়েন্সের শিক্ষক, তিনি নভীন মহালাভকন্যা স্কুলে পঞ্চম শ্রেণী থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত পড়ান৷

সঞ্জয়ও ওই একই বিদ্যালয়ের শিক্ষক৷ দুজনেই খুবই টেক-স্যাভি এবং মাল্টিমিডিয়া ফোনও ব্যবহার করেন বলে জানিয়েছেন৷

মীনা জানিয়েছেন, ব্রেইলে বই পাওয়া যায় কিন্তু একটা সাধারণ বইয়ের সমান ব্রেইলের চারটি বই৷ তার তিন বছর বয়সে ছানি ধরা পড়েছিল। তারপর সার্জারির পর তিনি সম্পূর্ণ দৃষ্টিশক্তি হারিয়ে ফেলেন৷

নভীন মহালাভকন্যা স্কুলের প্রিন্সিপাল প্রতিভা লাধ জানিয়েছেন, তারা কাজের ক্ষেত্রে দুর্দান্ত সফল৷ তাদের কাজের প্রশংসা যত করা যায় তত কম৷ সঞ্জয় এবং মীনার দুই মেয়ে আছে তাদের দৃষ্টিশক্তি সম্পূর্ণ স্বাভাবিক বলেই প্রিন্সিপাল প্রতিভাদেবী জানিয়েছেন৷






মন্তব্য চালু নেই