মেইন ম্যেনু

সৈয়দ আশরাফের মন্ত্রিত্ব নিয়ে গুঞ্জন

মন্ত্রিসভায় রদবদলের গুঞ্জন উঠছে। মঙ্গলবার সকাল থেকেই রদবদলের কথা শোনা গেছে। কিন্তু বিকেল ৫টা পর্যন্ত মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে কোন আদেশ জারি করা হয়নি।

মন্ত্রিসভায় রদবদলের সম্ভাবনার কথা উড়িয়ে দিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা সাংবাদিকদের জানান, এ বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না। বিকেল ৪টা ২০ মিনিটে সচিবালয়ে নিজ দফতর থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় অপেক্ষমান সাংবাদিকের সঙ্গে কথা বলেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

মঙ্গলবার সকাল থেকেই গুঞ্জন ওঠে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে সরিয়ে দফতরবিহীন মন্ত্রী করা হচ্ছে। স্থানীয় সরকারে যাচ্ছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন। বিভিন্ন গণমাধ্যম মন্ত্রিসভার রদবদল নিয়ে সংবাদও প্রকাশ করে। তবে কেউ সূত্র নিশ্চিত করতে পারেননি।

গুঞ্জন ওঠে খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়াকেও সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

বিষয়টি সম্পর্কে নিশ্চিত হবে দুপুর থেকে সাংবাদিকরা ভিড় করেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে। কিন্তু মন্ত্রিপরিষদ সচিব একটি বিদেশি প্রতিনিধি দলের সঙ্গে সভা করছিলেন। সভা শেষে বিকেলে দফতর থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় সাংবাদিকরা মন্ত্রিপরিষদ সচিবের কাছে মন্ত্রিসভার রদবদলের বিষয়ে জানতে চান।

মোশাররফ হোসাইন বলেন, ‘কিছু হয়নি, হলে আপনারা জানবেন।’

শোনা যাচ্ছে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে সরিয়ে দেওয়ার বিষয়ে একটি প্রক্রিয়া চলছে- সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘কিসের প্রক্রিয়া। আমি তো কিছু জানি না। আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করার মতো কোন তথ্য আমার কাছে নেই। আমি এ বিষয়ে কিছু জানি না।’

গত বছরের ১২ জানুয়ারি শেখ হাসিনাকে প্রধানমন্ত্রী করে নতুন মন্ত্রিসভা গঠন করা হয়। এতে প্রধানমন্ত্রী ছাড়া ২৯ জন মন্ত্রী, ১৭ প্রতিমন্ত্রী এবং দুজন উপমন্ত্রী ছিলেন।

এরপর ওই বছরের ২৬ ফেব্রুয়ারি খালি থাকা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্ব পান এ এইচ মাহমুদ আলী ও পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান মো. নজরুল ইসলাম হিরু। অপরদিকে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী আব্দুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকবকে সরিয়ে পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হয়।

হজ নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্যের জন্য গত বছরের ১২ অক্টোবর ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আবদুল লতিফ সিদ্দিকীকে অপসারণ করা হয়।

এখন মন্ত্রিসভায় মন্ত্রীর সংখ্যা ২৯, উপদেষ্টা ৫ ও প্রতিমন্ত্রীর সংখ্যা ১৮ জন দাড়ালো। প্রধানমন্ত্রী ছাড়া মন্ত্রিসভার মোট সদস্য ৫৩ (উপদেষ্টাসহ) জন।






মন্তব্য চালু নেই