মেইন ম্যেনু

সোনায় মোড়া পাহাড়

সোনায় মোড়ানো পাহাড়! শুনতে অবাস্তব লাগলেও এটাই সত্য যে সেই পাহাড় রয়েছে আমাদেরই প্রতিবেশি দেশ ভারতে। আর সেই সোনায় মোড়ানো পাহাড়ের দেশ মানেই হলো ভারতের রাজ্য কেরালা।

ভারতের দক্ষিণ-পশ্চিমের রাজ্য কেরালা বলতেই চোখের সামনে ভেসে ওঠবে মন্দির, মসজিদ, চার্চ কিংবা প্রাসাদ। আরো রয়েছে আরব সাগরের তীরে পরিচ্ছন্ন সাগরতট, চিরসবুজ পশ্চিমঘাট পর্বতমালা, পেরিয়ার হৃদের জলে লঞ্চে ভেসে বন্যপ্রাণী দর্শন।

এছাড়াও আলেপ্পির ব্যাকওয়াটারে ক্রুজ বা চা-বাগানের সুঘ্রাণমাখা সহজ-সরল মুন্নারের জীবনযাত্রা চাক্ষুষ করা। তাই চলুন এবার আমরা কোনো পরিচিত জায়গায় বেড়াতে যাব না? আমাদের গন্তব্য কেরালার অচেনা শৈলশহর পোনমুড়ি।

কীভাবে যাবেন : ভারতের যেকোন প্রান্ত থেকে কেরালার বড় শহর তিরুবনন্তপুরম পৌঁছাবেন। তারপর এই শহর থেকে ৬১ কিলোমিটার দূরে পোনমুড়ি। বাসে অথবা গাড়িতে গিয়ে দিনে দিনেই ফিরে আসা যায় তিরুবনন্তপুরমে। শুধু যাওয়ার পথে পড়ে ২২টি চুলের কাঁটার মতো বিপজ্জনক বাঁক। সময় লাগবে সর্বোচ্চ দুই থেকে আড়াই ঘণ্টা।

কোথায় থাকবেন : নিরালা পোনমুড়িতে থাকার জন্য আছে কেরালা রাজ্যের পর্যটন দফতরের গেস্টহাউস। সেখানেই থাকতে পারেন। বিদেশি হিসেবে সন্মান ও ছাড় দু’টিই পাবেন।

কী দেখবেন : ছবির মতো সাজানো সুন্দর শৈলশহর এই পোনমুড়ি মালায়লম ভাষায় ‘পোন’ কথার অর্থ সোনা এবং ‘মুড়ি’ কথার অর্থ পাহাড়। অর্থাৎ এর আক্ষরিক অর্থেই সোনা দিয়ে মোড়া পাহাড়ি শহর পোনমুড়ি। পশ্চিমঘাট পর্বতমালার কোলে তিন হাজার ফুট উঁচুতে অবস্থিত এই পোনমুড়ি শৈলশহর।

চারদিকে সবুজ গাছ, মাঝে মাঝে ছোট্ট ঝরনা, অপূর্ব নৈসর্গিক দৃশ্য মনে হয় যেন শিল্পীর ক্যানভাসে আঁকা ছবি। ট্রেকিং করতে পারে। এখান থেকে ঘুরে আসতে পারেন ১০ কিলোমিটার দূরের পিপ্পারা অভয়ারণ্য থেকে। ৫৩ বর্গ কিলোমিটার জায়গা জুড়ে এই জঙ্গলে দেখা মিলবে হাতি, লেপার্ড, ফ্লাইয়িং ফ্রগ, মালাবার ট্রি টোড, ট্রাভানকোর টরটয়েজসহ অজস্র রং-বেরঙের পাখির।






মন্তব্য চালু নেই