মেইন ম্যেনু

স্ক্যানেও ধরা পড়েনি, লাগেজ ভেঙে পাওয়া গেল ৩ কেজি কোকেন

প্রায় ৩ কেজি কোকেনসহ স্পেনের এক নাগরিককে গ্রেপ্তার করেছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। স্পেনের ওই নাগরিক ‘জুলিয়ান’ নামে মতিঝিলের একটি আবাসিক হোটেল প্যাসিফিকে রুম বুকিং ছিল। তিনি ব্রাজিল থেকে কোকেন নিয়ে দুবাই হয়ে বাংলাদেশে আসেন বলেও জানা গেছে।

মঙ্গলবার রাতে তাকে হযরত শাহজালাল (রহ.) আর্ন্তজাতিক বিমানবন্দরে থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের ঢাকা মেট্রো অঞ্চলের উপ-পরিচালক মুকুল জ্যোতি চাকমা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ওই ব্যক্তি অ্যামিরাটস এয়ারলাইন্সের ইকে ৫৮৬ ফ্ল্যাইটে আরব আমিরাত হয়ে শাহজালাল বিমানবন্দরে আসেন। গোয়েন্দা তথ্যেও ভিত্তিতে তার লাগেজ থেকে প্রায় ৩ কেজি কোকেন উদ্ধার করা হয়।

তিনি জানান, প্রথমে তার লাগেজ এবং শরীরে ব্যাপক তল্লাশি এবং বিমানবন্দরের কাস্টমস ও কাস্টমস গোয়েন্দা বিভাগের আধুনিক স্ক্যানিং মেশিন দিয়ে স্ক্যান করেও কোথাও কোকেনের সন্ধান পাওয়া যায়নি। কিন্তু গোয়েন্দা তথ্য থাকায় তার লাগেজ ভেঙে ফেলা হয়। পরে লাগেজের ভেতরে বিশেষভাবে লুকানো অবস্থায় কোকেনগুলো উদ্ধার করা হয়।

মুকুল জ্যোতি জানান, আর্ন্তজাতিক মাদক পাচারকারী চক্রগুলো এখন বিশেষ এক ধরনের কার্বন পেপার দিয়ে মাদক মুড়িয়ে পাচার করছে। ফলে সাধারণ স্ক্যানিং মেশিনে ওইসব মাদক ধরা পড়ছে না।

গ্রেপ্তারকৃত জুলিয়ানকে প্রাথমিকভাবে জিঙ্গাসাবাদের পরও তিনি কোনো কিছু জানাতে অস্বীকৃতি জানান। তবে তিনি এতটুকু জানিয়েছেন, তিনি ব্রাজিল থেকে আরব আমিরাত হয়ে বাংলাদেশে আসেন। তার নামে রাজধানীর মতিঝিলে হোটেল প্যাসিফিকে একটি রুম বুকিং ছিল। এয়ারপোর্ট থেকে তার এই হোটেলেই উঠার কথা ছিল। তবে কে বা কারা তার নামে এই রুম বুকিং দিয়েছিল তা জানাননি তিনি।

আজ বুধবার জুলিয়ানকে আদালতের মাধ্যমে রিমান্ডে এনে দোভাষীর মাধ্যমে জিঙ্গাসাবাদ করা হবে বলে জানান তিনি।






মন্তব্য চালু নেই