মেইন ম্যেনু

স্বল্প পরিচয়ে ব্যক্তিত্ববান মানুষেরা যে প্রশ্নগুলো কখনোই করেন না

আপনি কতটা ব্যক্তিত্বসম্পন্ন মানুষ তা প্রকাশ পায় আপনার আচরণে। আপনি কীভাবে কথা বলেন, অন্যকে কতটা শ্রদ্ধার চোখে দেখেন, অন্যের প্রাইভেসিকে কতটা মূল্য দেন তার উপর অনেকটাই নির্ভর করে আপনার ভাবমূর্তি। আপনি যখন নতুন একজন মানুষের সাথে পরিচিত হচ্ছেন তখন খেয়াল রাখুন নিজেকে কীভাবে তার সামনে প্রকাশ করছেন। তাই জেনে নিন কোন প্রশ্নগুলো স্বল্প পরিচয়ে কখনোই করবেন না।

আপনি কি বিবাহিত/সিঙ্গেল?
একজন মানুষ বিবাহিত কিনা, কারও সাথে সম্পর্কে আছেন কিনা এটি খুবই উদ্দেশ্যমূলক প্রশ্ন। আপনি যাকে প্রশ্নটি করছেন, এই প্রশ্নের সাথে সাথেই তিনি আপনাকে একজন সুবিধাভোগী, স্বার্থান্বেষি মানুষ হিসেবে বিবেচনা করবেন। তাই অন্যের ব্যক্তিগত বিষয়ে প্রশ্ন করতে সময় নিন।

কে ফোন করেছে?
কিছুক্ষণের পরিচয় হোক আর কিছুদিনের, যখন মানুষটি আপনার ঘনিষ্ঠ নয় তখন আপনি কোনভাবেই তাকে প্রশ্ন করতে পারেন না ফোনের ওপাশে কে ছিল। এটি খুবই বিরক্তিকর এবং অনধিকারচর্চা। সামনের মানুষটি আপনাকে একজন কর্তৃত্বপরায়ণ মানুষ হিসেবে ধরে নিতে পারেন। অথবা তিনি ভাবতে পারেন আপনি সম্পর্কের গন্ডি বোঝেন না।

বাসায় কে রান্না করে?
আমাদের দেশে একটি অতি সাধারণ প্রশ্ন, ‘বাসায় কে রান্না করে?’ আপনি যখন বন্ধুর মত কাছের একজন তখন প্রশ্ন করতেই পারেন। কারণ তখন আপনারা হয়ত আরও অনেক কিছুই শেয়ার করেন, তাই এটা কোন ব্যাপার না। কিন্তু যখন আপনি মাত্র কারও সাথে পরিচিত হলেন তখন এই প্রশ্ন মানে হচ্ছে আপনি কৌশলে জেনে নিতে চাইছেন, তিনি সংসার করতে পারদর্শী কিনা।

আপনার স্ত্রী বা স্বামী কী করেন?
এটিও একটি ব্যক্তিগত প্রশ্ন। আপনি যাকে প্রশ্ন করছেন সে হয়ত আপনার সহপাঠী অথবা সহকর্মী। আপনি যে কাজে তার সাথে সম্পৃক্ত শুধু সে বিষয়েই নিজের আলোচনা সিমাবদ্ধ রাখুন।

আপনাদের সম্পর্ক কেমন?
স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক কেমন এটা জানার অধিকার তারা কাদেরকে দেবেন সেটা তারা নির্ধারণ করবেন। আপনি বাইরে থেকে জানতে চাইতে পারেন না। ঠাট্টাচ্ছলেও স্বল্পপরিচয়ে কোন মানুষকে তার পারিবারিক বিষয় নিয়ে প্রশ্ন করা উচিৎ নয়।

আপনার আয় কত?
এটি আরেকটি প্রশ্ন যা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে বিবেচিত হতে পারে। নিজের সীমা বুঝুন। সেই অনুযায়ী অন্যকে জানুন, প্রশ্ন করুন। অযাচিত প্রশ্ন করে অপমানিত হবেন না। আত্মনিয়ন্ত্রণ শিখুন, চর্চা করুন।






মন্তব্য চালু নেই