মেইন ম্যেনু

স্যামসাংয়ের স্মার্ট জুতা

যুগ বদলে যাচ্ছে খুব দ্রুত। সবকিছুতেই স্মার্টনেসের গুরুত্ব বাড়ছে। টেবিলের পিসি স্মার্ট হয়ে চলে এসে হাতের তালুতে। বার বা ফিচার ফোন ছেড়ে স্মার্টফোনে জমেছে নতুন প্রজন্ম। হাতের ঘড়িও হয়েছে স্মার্ট। চোখের চশমাতেও স্মার্টগ্লাস। পরিধেয় বস্তু যদি স্মার্ট হতে পারে পায়ের জুতোটা কেনো স্মার্ট হবে না? দক্ষিণ কোরিয়ার স্বনামধন্য প্রযুক্তি পণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান স্যামসাংয়ের ল্যাবে সল্টেড ভেঞ্চার নামের একটি নতুন উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান নতুন একটি জুতো বানিয়েছে। নতুন এই জুতোর নাম দিয়েছে ‘লফিট’।

এই জুতো আপনার পা কে শুধু ধুলোবালি থেকে রক্ষা আর হাঁটা চলা অথবা দৌড়াতেই সাহায্য করবে না। এই জুতার আছে বহুবিধ ব্যবহার। এতে রয়েছে সেন্সর যা আপনার বডি ব্যালেন্স এবং অঙ্গ বিন্যাস শনাক্ত করতে পারবে। শনাক্ত করার পর আপনার ফিটনেস বাড়ানোর জন্য আপনাকে উপদেশও দিবে।

দুইটি মডেলে স্মার্ট জুতা তৈরি করা হয়েছে। একটি দেখতে রানিং সুজ এর মত। এই জুতা মূলত হাঁটাচলা করার জন্য উপযোগী।

অন্যটি হল অক্সফোর্ড সুজ যা গলফ খেলার জন্য উপযোগী। তবে উভয় জুতা নির্দিষ্ট কাজ ছাড়া অন্য সময় ব্যবহার করা যাবে না এমনটা নয়। দুটি মডেলেই সেন্সর রয়েছে। একটি অ্যানড্রয়েড অ্যাপসের সাহায্যে জুতার তথ্য গুলো মোবাইল ফোনে জানা যাবে। এটি আপনাকে তথ্য দেবে তখন যখন আপনার জুতার কেন্দ্রের ভর অন্যান্য যেকোনো অঞ্চলের চেয়ে বেশি হবে। যখন আপনি জুতার উপর ভর দেবেন তখন জুতার সেন্সর কার্যকর হবে।

লফিট অ্যাপটি আপনাকে জানিয়ে দেবে কিভাবে দাঁড়ানো উচিত আর কিভাবে হাঁটা চলা করা উচিত।

নতুন এই স্মার্ট জুতার রানিং মডেলের মূল্য ১৯৯ ডলার এবং অক্সফোর্ড সুজের দাম ২৬০ ডলার। ভ্যাট ও ট্যাক্স ছাড়া বাংলাদেশি টাকায় যথাক্রমে ১৫ হাজার ৯০০ টাকা এবং ২০ হাজার ৮০০ টাকা।



(পরের সংবাদ) »



মন্তব্য চালু নেই