মেইন ম্যেনু

স্যামসাং স্টুডিও রোডশো নিয়ে দেশের শীর্ষ বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে “স্যামসাং”

স্যামসাং মোবাইল বাংলাদেশ দেশের বিভিন্ন শীর্ষস্থানীয় বিশ্ববিদ্যালয়সমূহে উৎসাহমূলক রোডশো আয়োজন করেছে। বাংলাদেশের জন্য এবং দেশীয় ডিজাইনে তৈরি কাস্টোমাইজড প্রোডাক্ট প্যাকেজিং নিয়ে আসার দারুণ উদ্যোগের মাধ্যমে স্থানীয় স¤পৃক্ততা আরো বহুগুণে বৃদ্ধি পাবে।

সকল সৃজনশীল মানুষ বাংলাদেশকে তুলে ধরে, এমন ডিজাইন প্রতিযোগিতায় জমা দিতে পারবেন। প্রতিযোগিতা শুরুর পর থেকে স্যামসাং মোবাইল বাংলাদেশ নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি, ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অফ প্রফেশনালস, ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি অফ বাংলাদেশ, শান্তা-মারিয়াম ইউনিভার্সিটি অফ ক্রিয়েটিভ টেকনোলজি এবং অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে রোডশো আয়োজনের মাধ্যমে বহু প্রভিভাবান মানুষের কাছে পৌঁছাতে পেরেছে।

এই উদ্যোগের মাধ্যমে স্যামসাং বিশ্বাস করে যে, প্রথমবারের মত স্যামসাং মোবাইল ফোনের প্রোডাক্ট প্যাকেজিং (অথবা ইউনিট বক্স) বাংলাদেশে ডিজাইন হবে এবং বাংলাদেশের জন্য ডিজাইন হবে। স্যামসাং স্টুডিও’র প্রতিযোগিরা যত খুশি তত ডিজাইন প্রতিযোগিতার অনলাইন পোর্টাল http://www.samsung-bd.com/samsungstudio/-এ ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ পর্যন্ত জমা দিতে পারবেন। একটি বিশেষজ্ঞ বিচারক প্যানেল বিজয়ী ডিজাইনটি নির্বাচিত করবেন। বিচারক প্যানেলে থাকছেন ডিজাইনিং, মার্কেটিং এবং শিল্প বিশেষজ্ঞগণ।

চূড়ান্ত ডিজাইনটি একটি গালা ইভেন্টে উন্মুক্ত করা হবে এবং সেখানে বিজয়ীদের পাশাপাশি চূড়ান্ত প্রতিযোগীদের পুরস্কৃত করা হবে। বিজয়ী প্রতিযোগি ১ হাজার মার্কিন ডলার পুরস্কার পাবেন, শুধু তাই নয়, তার ডিজাইন বাংলাদেশের লক্ষ লক্ষ মানুষের হাতে স্যামসাং হ্যান্ডসেটের বক্সের মাধ্যমে পৌঁছে যাবে। বিজয়ীর পাশাপাশি দুই জন রানারস-আপ পাবেন স্যামসাং স্মার্টফোনস এবং চূড়ান্ত দশ জন প্রতিযোগি স্যামসাং-এর তরফ থেকে সনদপত্র পাবেন।

বিশাল সাফল্যের সাথে আসে বিশালতর দায়িত্ব। স্যামসাং মোবাইল বাংলাদেশের বাজারে প্রচুর সাফল্য ও ব্র্যান্ড লয়্যালটি উপভোগ করেছে, এ কারণে বাংলাদেশের সাথে গভীরভাবে সংযুক্ত হতে আরো পদক্ষেপ নিচ্ছে। স্যামসাং স্টুডিও এরকম আরো অনেক পদক্ষেপের মধ্যে প্রথম।

সৃজনশীল ডিজাইনাররা http://www.samsung-bd.com/samsungstudio/-তে তাদের ডিজাইন জমা দিতে পারবেন, যেখানে বাংলাদেশকে তুলে ধরা হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই