মেইন ম্যেনু

‘স্যার আপনাদের কাছে টাকা চাইনা, আমার মাইয়াডারে বাঁচাইয়া দেন’

স্যার আপনাদের কাছে টাকা চাইনা, কেউ যদি আমার মাইয়াডারে চিকিৎসা করানোর দায়িত্ব নিত তাহলে আমার নয়নমণিরে পরান ভইরা সারাজীবন জীবিত অবস্থায় দেখতাম। সহায় সম্বলহীন আফরোজার মা মোর্শদা অঝোরে কাঁদতে কাঁদতে কথাগুলো বলতে থাকেন।

টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়নের শাপলা গ্রামের ভ্যানচালক আব্বাস আলীর স্ত্রী ও অসুস্থ আফরোজার মা মোর্শেদা বেগম জানান তার স্বামী দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্ন রোগে শয্যাসায়ী অবস্থায় আছেন। এক ছেলে ও এক মেয়ে সহ চারজনের সংসারে সামান্য দর্জির কাজ করে রোগজার করে যা আসে তাই সবাই মিলে কোনভাবে খেয়ে পড়ে থাকেন। আফরোজা গারোবাজার এন প্রি পি ক্যাডেট ল্যাব স্কুলে তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী গত ৪ বৎসর পূর্বে হঠাৎ করে অসুস্থ হয়ে পড়লে ময়মনসিং মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ডা: আনোয়ার হোসেন পরীক্ষা নিরীক্ষা করার পর জানান যে, জন্ম থেকে আফরোজা ঘাতক ব্যধি থ্যালাসেমিয়া রোগে আক্রান্ত।

প্রতিমাসে তার শরীরে রক্ত না বদলালে নিশ্চিত মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়বে। তাইতো তার রক্ত বদলানোর আর ঔষধ পত্র বাবদ প্রতিমাসে ৬ হাজার করে টাকার প্রয়োজন। সহায় সম্বলহীন এই পরিবারের পক্ষে মেয়ের চিকিৎসা করা কোনভাবেই সম্ভব নয়। এরই মধ্যে তাদের ১৪ শতাংশ জমি বিক্রি করে চিকিৎসার কাজে ব্যয় করা হয়েছে। বর্তমানে আফরোজা ও তার পরিবারের সবাই মিলে অন্যের বাড়িতে বসবাস করেন। সমাজের বৃত্তবানদের কাছে আফরোজা মা মোর্শেদার আকুল আর্তনাদ যে আপনাদের কাছে আমি টাকা পয়সা চাইনা আমার মাইডারে চিকিৎসা করাইয়া দেন। আমি আমার নয়নমনিকে সারাজীবন জীবিত অবস্থায় দেখতে চাই।

আফরোজার চিকিৎসার জন্য সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা
মোর্শেদা
সোনালী ব্যাংক
সঞ্চয়ী হিসাব নং-৩৪০০৯২৯৬
গারোবাজার, টাংগাইল।
মোবাঃ ০১৭৬২১৯৫৬৯৮





মন্তব্য চালু নেই