মেইন ম্যেনু

স্লিম থাকতে নজর দিন খাদ্যের মানের দিকে

আমাদের আশপাশে এমন অনেকেই রয়েছেন যারা নিজেদের ওজন বেড়ে যাওয়া বা ডায়েট নিয়ে বিব্রত বা চিন্তিত কোনোটাই নন। গপাগপ খেয়েও তারা দিব্যি স্লিম ফিগার নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এখানেই রহস্য। কসরত ছাড়াই স্লিম থাকার রহস্য হচ্ছে তারা পরিমাণ নয়, খাদ্যের মানের ওপর নজর দেন সবসময়। গবেষকরাও দ্বিমত করেননি এ বিষয়ে।

এ তত্ত্বটি অবশ্যই উৎসাহজনক কারণ, এর ফলে ডায়েটের ওপর কড়া নজর রাখা আর প্রিয় খাবার থেকে মুখ ফিরিয়ে নিতে হবে না আর। শুধু খবারের পরিমাণের বদলে খাবারের মানের দিকে গুরুত্ব দিলেই চলবে। জানান, এ বিষয়ে গবেষণার প্রধান ফিনল্যান্ডের ইউনিভার্সিটি অব টেম্পারের অ্যানা-লিনা ভরিনেন।

গ্লোবাল হেলদি ওয়েট রেজিস্ট্রির মাধ্যমে দেখা যায়, প্রাপ্তবয়স্করা এ পদ্ধতি অবলম্বনে সাফল্যজনকভাবেই সারাজীবন স্বাস্থ্যকর ওজন ধরে রাখতে পেরেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের কর্নেল ফুড ও কর্নেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্র্যান্ড ল্যাব এই রেজিস্ট্রি করে।

রেজিস্ট্রিতে আগ্রহী ব্যক্তিরা তাদের দৈনন্দিন রুটিন, খাদ্যাভাস ও ব্যায়াম বিষয়ক ধারাবাহিক প্রশ্নের উত্তর দেন। গবেষকরা স্বেচ্ছাসেবীদের দু’টি দলে ভাগ করেন। এতে দেখা যায়, ১১২ জন প্রাপ্তবয়স্ক যারা স্লিম থাকতে কঠোর ডায়েট চার্ট মেনে চলেন না।

অন্যদিকে আরেক দলের ব্যক্তিরা স্লিম থাকতে দৈনন্দিন ডায়েট চার্টের প্রতি কঠোর মনোযোগী। উপাত্ত সংগ্রহ করে দেখা যায়, যারা ডায়েট মেনে চলেন না, তারা স্লিম থাকতে খদ্যের মানের দিকে মনোযোগ দেন, বাড়িতে রান্না করা খাবার খান ও শরীরের চাহিদা বুঝে খান।

অপর দলের মতো অতিরিক্ত খাওয়া নিয়ে হায়হুতাশ করেন না। গবেষণাটি সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলসের দ্য অবিসিটি সোসাইটির বার্ষিক বৈজ্ঞানিক সভায় উপস্থাপন করা হয়।






মন্তব্য চালু নেই