মেইন ম্যেনু

হাইতিকে গোলবন্যায় ভাসালো ব্রাজিল

কোপা আমেরিকায় গ্রুপপর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ইকুয়েডরের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করেছিল ব্রাজিল। পয়েন্ট খুইয়ে অনেকটা হতাশ ছিল সেলেকাও শিবির। দ্বিতীয় ম্যাচে হাইতিকে পেয়ে জ্বলে উঠল কার্লোস দুঙ্গার দল। দুর্বল দলটিকে গোলবন্যায় ভাসালো ব্রাজিল। ফিলিপে কুটিনহোর হ্যাটট্রিকে ৭-১ গোলের ব্যবধানে বড় জয় পেয়েছে পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। এতে দুর্দান্তভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছে নেইমারহীন ব্রাজিল।

ফ্লোরিডার অরল্যান্ডে ক্যাম্পিং ওয়ার্ল্ড স্টেডিয়ামে ব্রাজিল খেলেছে ব্রাজিলের মতোই। ম্যাচের শুরু থেকেই নিজেদের আধিপত্য বিস্তার করতে সক্ষম হন দুঙ্গার শিষ্যরা। অপরদিকে কোণঠাসা হয়ে পড়ে হাইতি। গ্যাব্রেইল-কুটিনহো-লুকাসদের বারবার আক্রমণে তাদের রক্ষণ দুর্গ দুর্বল হয়ে পড়ে।

ম্যাচের ১৪ মিনিটেই জোরালো আঘাত হানেন কুটিনহো। দুর্দান্ত এক গোল আদায় নেন লিভারপুলের এই তারকা। আর তাতে ব্রাজিল এগিয়ে যায় ১-০ ব্যবধানে। গোলমুখ উন্মোচন করা কুটিনহো অবশ্য হ্যাটট্রিক আদায় করে নিয়েছেন ম্যাচটিতে। ২৩ বছর বয়সী এই ব্রাজিলিয়ান বাকি গোল দুটি করেছেন ২৯ ও অতিরিক্ত সময়ে (৯০+২ মিনিট)।

এদিন নিজের জাত চিনিয়েছেন রেনেতো অগুস্তো। দারুণ দক্ষতায় নামের পাশে যোগ করেছেন দুটি গোল। ৩৫ ও ৮৬ মিনিটে হাইতির জাল কাঁপিয়ে ব্রাজিলকে বড় জয়ের কক্ষপথেই রাখেন বেয়ার লেভারকুসেনের সাবেক এই মিডফিল্ডার।

সেলেকাওদের পক্ষে অন্য দুটি গোল এসেছে গ্যাব্রেইল বারবাসো ও লুকাস লিমার কল্যাণে। ৫৯ মিনিটে এলিয়াসের পাস ধরে হাইতির জালে বল প্রবেশ করান সান্তোস তারকা গ্যাব্রেইল। ম্যাচের ৬৭তম মিনিটে লক্ষ্যভেদ করেন সান্তোসের আরেক তারকা মিডফিল্ডার লিমা। গোলটির উৎস মুখে ছিলেন দানি আলভেজ।

এদিকে হাইতিকেও একদম খালি হাতে ফিরতে হয়নি। একবার ব্রাজিলের জাল কাঁপানোর সুযোগ হয়েছে তাদের। খেলার ৭০ মিনিটে হাইতির পক্ষে সান্ত্বনার গোলটি করেন জেমস মার্সেলিন।

অপর ম্যাচে পেরুর সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র নিয়ে মাঠ ছেড়েছে ইকুয়েডর।






মন্তব্য চালু নেই