মেইন ম্যেনু

হাজীগঞ্জে বিএনপি প্রার্থীর পক্ষে নোমানের গণসংযোগ, বিদ্রোহী প্রার্থীর শ্লোগান

শুক্রবার বিকেলে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থীর পক্ষে গণসংযোগে আসেন দলের ভাইসচেয়ারম্যান আবদূল্লাহ আল নোমান । এ সময় বিএনপির তিনপক্ষ নির্বাচন বাদ দিয়ে নিজেদের সামর্থ্য জাহিরে ব্যস্ত ছিল।

স্থানীয় বিএনপি সুত্রে জানা গেছে, আব্দুল্লাহ আল নোমান গণসংযোগে আসার সময় পৌরসভাধীন টোরাগড় এলাকায় হাজীগঞ্জ মডেল পাইলট হাইস্কুল এন্ড কলেজের সামনে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী হেলাল উদ্দিন মজুমদার নোমানের গাড়ী থামিয়ে নিজের জনপ্রিয়তার কথা তুলে ধরেন।

এসময় হেলালের সমর্থকরা সড়কের দুই পাশে জগ মার্কা নিয়ে অবস্থান করে বিএনপির প্রার্থী আ: মান্নান খানের বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ শ্লোগান দেন।

বিএনপির স্থানীয় নেতা কর্মীরা জানান , নোমান হাজীগঞ্জ বাজার সেতুর উপর পৌঁছলে তাঁকে স্বাগত জানাতে দুই পক্ষের নেতাকর্মীরা হুড়োহুড়ি শুরু করেন। তখন দুইপক্ষের মধ্যে ধস্তাধস্তির ঘটনাও ঘটে। এ সময় নেতাকর্মীরা ধানের শীষ বাদ দিয়ে মতিন ও মমিনের নামে শ্লোগান দেন।

পরে নোমান মধ্যবাজারে কুমিল্লা-চাঁদপুর মহাসড়কে একটি রিক্সার উপর দাঁড়িয়ে নেতাকর্মীদের উদ্বেশ্যে বক্তব্য দেন। তিনি বলেন , দলীয় প্রার্থী ও প্রতীকের বাইরে যেয়ে কোন নেতাকর্মীর কাজ করার সুযোগ নেই।

বিএনপির প্রার্থীর বাইরে অন্য প্রার্থীর পক্ষে কাজ করলে নৌকার প্রার্থী লাভবান হবে। এসময় তিনি বিএনপির প্রার্থী মান্নান খানকে ধানের শীষ প্রতীক হাতে পরিচয় করিয়ে দেন। বক্তব্য শেষ করে তিনি বাজারে কয়েকটি দোকানে বিএনপির প্রার্থীর প্রচারপত্র বিলি করেন। এসময় সড়কের দুই পাশে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে নেতাকর্মীদের চাপ সামলাতে না পেরে তিনি গাড়িতে ওঠে চলে যান।

দুই ভাগে বিভক্ত হাজীগঞ্জ বিএনপির একপক্ষের নেতৃত্বে রয়েছেন সাবেক সাংসদ এম এ মতিন ও অপরপক্ষের নেতৃত্ব দেন জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার মমিনুল হক। মতিন ও মমিনের অনুসারী বেশ কিছু নেতাকর্মী বিদ্রোহী প্রার্থী হেলাল উদ্দিন মজুমদারের পক্ষে প্রত্যক্ষভাবে কাজ করছেন। এতে মুলত বিএনপি এখন তিন ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে।

বিএনপির দশজন নেতাকর্মী আক্ষেপ করে বলেন, এখন ভোটের সময়ও ধানের শীষ প্রতীক বাদ দিয়ে নিজের নেতার নাম জাহির করে তাঁরা দলাদলিতে ব্যস্ত ।

যেখানে তাঁরা দলাদলি বাদ দিয়ে ধানের শীষ প্রতীকে ভোট চাইবেন সেখানে একজন কেন্দ্রীয় নেতার সামনে নিজেদের গ্র“পিং এর বিষয়টি তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন।

উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সুফিয়ান রানা বলেন, বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে মতের অমিল থাকতে পারে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নেতাকর্মীদের মধ্যে মতভেদ নেই ।

বিদ্রোহী প্রার্থী প্রসঙ্গে আবু সুফিয়ান বলেন , আমরা যতটুকু জেনেছি নোমান সাহেব বিদ্রোহী প্রার্থীকে সংবাদ সম্মেলন করে নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।






মন্তব্য চালু নেই