মেইন ম্যেনু

হাতিরঝিলে বাস সার্ভিস চালু

রাজধানীর হাতিরঝিল প্রকল্প এলাকায় যাত্রীবাহী বাস সার্ভিস চালু হয়েছে। প্রাথমিকভাবে চারটি বাস কারওয়ানবাজার থেকে রামপুরা পর্যন্ত যাতায়াত করবে। কারওয়ান বাজার থেকে রামপুরা পর্যন্ত যাত্রীদের ১৫ টাকা ভাড়া দিতে হবে। আর পুরো হাতিরঝিল ঘুরতে লাগবে ৩০ টাকা।

চারটি মিনিবাস হাতিরঝিলের চারপাশের দশটি স্টপেজ থেকে যাত্রী তুলবে এবং নামিয়ে দেবে। টিকেট পাওয়া যাবে রামপুরা, মধুবাগ, এফডিসি মোড়, বৌবাজার, শুটিং ক্লাব ও মেরুল বাড্ডার ছয় কাউন্টারে।

বুধবার সকাল ৯টা ৫০ মিনিটে চারটি বাস উদ্বোধন করেন গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন।

তিনি বলেন, হাতিরঝিল ইতোমধ্যে একটি আইকন স্থাপনা হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। হাতিরঝিলের এমপি থিয়েটার, দৃষ্টিনন্দন ফোয়ারা স্থাপনের মাধ্যমে সৌন্দর্য বৃদ্ধির নানা উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এছাড়া হাতিরঝিলে একটি অপেরা স্থাপন করা প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন, সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের উদ্যোগও নেয়া হবে।

তিনি বলেন, হাতিরঝিলের সঙ্গে গুলশান-বনানী লেকের সংযোগ স্থাপন এবং আরও কয়েকটি ব্রিজ স্থাপন করা হবে।

মন্ত্রী বলেন, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) থেকে পার্কিংয়ের অনুমোদন নিয়ে রেস্টুরেন্ট গড়ে তোলা হচ্ছে। সড়কে অবৈধ পার্কিংয়ের কারণে প্রায়ই যানজট সৃষ্টি হয়। কেউ যেন সড়কের ওপর গাড়ি না রাখে সে বিষয়ে দৃঢ় পদক্ষেপ নেয়া হবে। কিছুতেই রাস্তায় গাড়ি রাখতে দেয়া হবে না।

এ সময় উপস্থিত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, হাতিরঝিলের সৌন্দর্য পৃথিবী স্বীকার করেছে। আগামীতে হাতিরঝিলে পাবলিক টয়লেটসহ পরিকল্পনা অনুযায়ী সব ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন প্রকল্প পরিচালক মেজর জেনারেল সাঈদ মাসুদ, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) চেয়ারম্যান জি এম জয়নাল আবেদীন ভুঁইয়া, পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) খন্দকার গোলাম ফারুক প্রমুখ।

হাতিঝিলে বাস সেবা পরিচালনার দায়িত্ব পাওয়া এইচ আর ট্রান্সপোর্ট লিমিটেড কর্তৃপক্ষ জানান, এক কাউন্টার থেকে আরেক কাউন্টারে সর্বনিম্ন ভাড়া ১০ টাকা। রামপুরা থেকে কাওরানবাজার গেলে ১৫ টাকা লাগবে। আর বাসে করে পুরো হাতিরঝিল ঘুরলে দিতে হবে ৩০ টাকা।

রাজউকের হাতিরঝিল প্রকল্পের পরিচালক জামাল আক্তার ভূঁইয়া জানান, এইচ আর ট্রান্সপোর্ট লিমিটেড প্রতি মাসে রাজউককে ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা দেবে।

এক সময় পুরনো খাল নৌকায় পার হয়ে রামপুরার বাসিন্দারা এপারে তেজগাঁওয়ে আসতে পারতেন। সংস্কার কাজ শুরুর প্রায় ছয় বছর পর ২০১৩ সালে প্রকল্পটি উন্মুক্ত করা হলেও বৈধ গণপরিবহনের কোনো ব্যবস্থা এতোদিন ছিল না।

মাঝে অনুমোদনবিহীন মাইক্রোবাস চলত হাতিরঝিলে। গণমাধ্যমে খবর প্রকাশের পর গত নভেম্বরে তা বন্ধ হয়ে গেলে পারাপারে বিপাকে পড়েন রামপুরা থেকে কারওয়ান বাজারগামী নগরবাসী।

রাজধানীর পূর্ব ও পশ্চিমাঞ্চলের মধ্যে যোগাযোগ বৃদ্ধি, যানজট ও জলাবদ্ধতা নিরসন এবং পরিবেশের ভারসাম্য ফিরিয়ে আনতে ২০০৭ সালে হাতিরঝিল সংস্কার প্রকল্প শুরু হয়। পুরনো পয়ঃনিষ্কাশন খালের জায়গায় মাটি খনন করে তৈরি করা হয় লেক।

৩০২ একর জামির ওপর গড়ে ওঠা এ প্রকল্প এলাকায় মোট ১৬ কিলোমিটার সড়ক রয়েছে। অপরিকল্পিতভাবে গড়ে ওঠা এই নগরে হাতিরঝিল ঘিরে এক টুকরো খোলা জায়গা পরিণত হয়েছে নগরবাসীর অন্যতম বিনোদনকেন্দ্রে।

পর্যায়ক্রমে হাতিরঝিলের সঙ্গে গুলশান, বারিধারা ও বনানী লেককেও যুক্ত করা হবে বলে গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী অনুষ্ঠানে জানান।






মন্তব্য চালু নেই