মেইন ম্যেনু

হাত নয়, নাক দিয়ে রান আউট!

বিভিন্নভাবে ব্যাটসম্যানকে রান আউট করতে দেখেছেন ক্রিকেটপ্রেমীরা। ৯০ ডিগ্রি কোণ থেকে থ্রো করে স্টাম্প ভাঙতে দেখেছেন, ফুটবলের মতো শট মেরে রান-আউট করা হয়েছে, রান-আউট করা হয়েছে বাউন্ডারি লাইন থেকে বল ছুঁড়েও। জন্টি রোডসের সেই বাজপাখির মতো শূন্যে উড়ে এসে রান-আউট করার দৃশ্য তো ক্রিকেটপ্রেমীদের চোখে লেগে আছে এখনো।

কিন্ত তাই বলে নাক দিয়ে রান আউট! শুনতে অদ্ভুত লাগলেও এরকমই এক অদ্ভুত ঘটনা ঘটেছে এবারের বিগব্যাশে। ৯ জানুয়ারি মেলবোর্ন ডার্বিতে মেলবোর্ন স্টারস আর মেলবোর্ন রেনেগেডস মুখোমুখি হয়েছিল একে অপরের।
ম্যাচের ১৩তম ওভারের খেলা চলছিল তখন। বল করছিলেন মেলবোর্ন স্টারস অলরাউন্ডার অ্যাডাম জাম্পা, ব্যাটিংয়ে ছিলেন ডোয়েইন ব্রাভো।

ওভারের দ্বিতীয় বলে ক্রিজ ছেড়ে খানিকটা এগিয়ে এসে সোজা মারেন ব্রাভো। সেই বল নন স্ট্রাইকিং প্রান্তে থাকা পিটার নেভিলের ব্যাটে লাগে। নেভিলের ব্যাটের কানায় লেগে সেই বল বেশ জোরেই আঘাত করে বোলার জাম্পার নাকে। আর তার নাকে লাগা সেই বল এরপর সোজা গিয়ে আঘাত করে নন স্ট্রাইকিং প্রান্তের স্টাম্পে। আর স্টাম্পে লাগার সময় নেভিল ছিলেন সীমানাদাগের বাইরে।

ঘটনার আকষ্মিকতায় পিটার নেভিল সাথে সাথেই ছুটে যান বোলার জাম্পার দিকে, জানতে চান তিনি ঠিক আছেন কিনা। কিন্তু ওই অবস্থাতেই জাম্পা রান আউটের আবেদন করেন আম্পায়ারের প্রতি। আম্পায়ারও জাম্পার কাছে আসেন, ছুটে আসে মেডিক্যাল টিমও। কিছুক্ষণ শুশ্রুষার পরই সুস্থ হয়ে ওঠেন জাম্পা। আর আম্পায়ার নেভিলকে জানিয়ে দেন, আউট হয়েছেন তিনি।

ম্যাচ শেষে ওই ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে জাম্পা বলেন, ‘নেভিল কি বলেছিল আমার মনে নেই। তবে আমার মনে হয় আমার তাকে স্যরি বলা উচিৎ। কারণ সে আমাকে সহমর্মিতা জানাতে এসেছিল, কিন্তু আমি তাকে সরিয়ে দিয়েছিলাম।’

আঘাত তেমন গুরুতর নয় জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বলটা যখন প্রথম আমার নাকে আঘাত করে, আমি ভেবেছিলাম নাক ভেঙে গেছে। আমি বেশ ভাগ্যবান যে সেটা হয়নি। আমি কিছু ব্যথানাশক নিয়েছি এবং কাল সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর হয়তো নিজের অবস্থা বুঝতে পারবো। আমি মোটামুটি নিশ্চিত যে খারাপ কিছু হয়নি।’






মন্তব্য চালু নেই