মেইন ম্যেনু

হামলায় মুসলিম নারীর গর্ভপাত, গ্রেপ্তার ১

যুক্তরাজ্যে গত মাসে এক গর্ভবতী নারীর ওপর হামলার অভিযোগে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে দেশটির পুলিশ।

সাম্প্রদায়িক চেতনার বশবর্তী হয়ে লোকটি এ হামলা চালিয়েছিল বলে পুলিশের ধারণা। ‍ওই হামলায় ওই নারীর গর্ভের সন্তান নষ্ট হয়ে যায়।

পুলিশ জানিয়েছে, গত ৬ আগস্ট উত্তর লন্ডনের বেলচলি শহরের একটি সুপার মার্কেটে শপিং করার সময় প্রথমে ওই নারীকে ‘সাম্প্রদায়িক কটূক্তির’ মাধ্যমে মৌখিকভাবে হয়রানি করা হয়। এরপর ওই নারী সুপার মার্কেট থেকে বেরিয়ে কার পার্কিংয়ের স্থানে গেলে লোকটি তার পিছু নেয় এবং সেখানে তার ওপর হামলা করে। লোকটি লাথি মেরে ওই নারীকে নিচে ফেলে দেয় এবং পেটে লাথি মারতে থাকে।

পরে ওই নারীকে উদ্ধার করে নিকটস্থ মিলটন কেইনস জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তবে চিকিৎসকরা তার গর্ভের সন্তানকে বাঁচাতে পারেননি। ওই নারী কয় মাসের গর্ভবতী ছিলেন, তা জানানো হয়নি।

তবে পুলিশ স্বীকার করেছে, ‘ওই নারী গর্ভবতী ছিল এবং ওই হামলার ফলে তার সন্তান নষ্ট হয়ে যায়।’

ওই নারীকে হামলার সময় তাকে সাহায্যার্থে ৪০ বছর বয়সি একটি লোক এগিয়ে এলে হামলাকারী তাকেও আইসব্যাগ ও বোতল দিয়ে মাথায় আঘাত করে।

টমাস ভ্যালি পুলিশ নিশ্চিত করেছে যে, গতকাল বুধবার ওই হামলাকারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

পুলিশ হামলাকারী লোকটি কিংবা হামলার শিকার ওই নারী, কারোরই পরিচয় প্রকাশ করেনি। তবে হামলার প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজন জানান, ওই নারীকে দেখতে মধ্যপ্রাচ্যের মনে হয়েছে এবং তার মাথায় স্কার্ফ ছিল। এতে বোঝা যায়, তিনি মুসলিম ছিলেন।

তথ্যসূত্র : আলজাজিরা ও দ্য ইন্ডিপেনডেন্ট






মন্তব্য চালু নেই