মেইন ম্যেনু

হিলারিকে ফিলিস্তিনি মেয়ের খোলা চিঠি

ফিলিস্তিনি নাগরিকদের উপর ইসরায়েলি বাহিনীর অযাচিত বর্বর হামলার ঘটনাকে উপেক্ষা করে কলাম লেখায় মার্কিন সাবেক ফার্স্ট লেডী হিলারি ক্লিনটনকে খোলা চিঠি লিখেছেন লায়ালি আওয়াদ নামে রামাল্লার এক ছাত্রী। খবর: হাফিংটন পোস্ট। চিঠিতে লায়ালি লিখেছেন…

প্রিয় হিলারি ক্লিনটন

আমরা ফিলিস্তিনে একটি পুরুষ প্রধান সমাজে বেড়ে উঠছি। লৈঙ্গিক সমতা নিয়ে আপনার বক্তব্যে অনুপ্রেরণা পাচ্ছি। আপনি সারা বিশ্বে লৈঙ্গিক সমতা চান। ফার্স্ট লেডি থাকার সময় আপনি একবার বলেছিলেন, মানবাধিকার আর নারীদের অধিকার আলাদা কিছু নয়। আপনার এ কথা আমিও দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি।

অাপনাকে পছন্দ করি বলেই ‘দ্য ফরওয়ার্ড’এ আপনার কলামটি পড়লাম। কিন্তু আমি অবাক হয়ে গেলাম যখন আপনি বললেন, আমার মাতৃভূমি নিয়ে আপনি ইসরায়েলের সাথে আলোচনা করবেন। আপনি একটিবারের জন্যও ফিলিস্তিনি নাগরিকের ও নিরীহ শিশুদের উপর ইসরায়েলি বর্বরতার কথা উল্লেখ করেন নি। আমি আরো অবাক হয়ে গেলাম যখন আপনি বললেন, আমরা ফিলিস্তিনিরা উত্তেজনার বশে ইসরায়েলিদের উপর চোরাগোপ্তা হামলা চালাচ্ছি এবং আমরা সমন্ত্রাসী। আপনার কলাম পড়লে বোঝা যাবে, ফিলিস্তিনিদের উপর ইসরায়েলি বর্বরতা বলতে কিছু নেই।

আমি সন্ত্রাসী নই। আমি সহিংসতায় বিশ্বাসীও নই। আমি একজন সাধারণ ফিলিস্তিনি মেয়ে যে ইসরায়েলি বর্বরতার মধ্যেও শিক্ষাকে মাধ্যম করে একটু ভালো জীবনের আশায় তার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এটা কিন্তু মোটেও সোজা কথা নয়। সেই পাঁচবছর বয়স থেকে স্কুলে যেতে অাসতে ইসরায়েলি বাধা ও তাদের নৃসংশতার শিকার হচ্ছি। আমাকে, আমার বাবা-মা-বোনকে প্রতিদিন কড়া তল্লাসী ও অপমান করা হত। একদিন ইসরায়েলের পুলিশ আমার পেছনে কুকুর লেলিয়ে দিয়েছিল। আমাকে পেছন থেকে গুলি করেছিল। আমি কোনো কারণ ছাড়াই খুন হতে পারতাম, যেমনটা হরহামেশাই বহু ফিলিস্তিনি হচ্ছে। আমার অবস্থা হতে পারত হাদিল সালাহ আল-হাসলামুনের মত। এ বছরের সেপ্টেম্বরে ১৮ বছর বয়সী এ ফিলিস্তিনি মেয়েটিকে ইসরায়েলি বাহিনী গুলি করে হত্যা করেছে।

ফিলিস্তিনের লাখ লাখ মেয়ের অবস্থা আমার মত। কিন্তু আপনার কলাম পড়লে মনে হবে, আমাদের বুঝি কোনো অস্তিত্বই নেই। ইতিহাসেও নারীদের যেভাবে অবমূল্যায়ন করা হয়েছে, আপনিও সেভাবেই করলেন।

হিলারি, আপনি কি জানেন ফিলিস্তিনের মোট জনসংখ্যার অর্ধেকই নারী? অামাদের ভাইদের মত আমরাও সামরিক নিপীড়নের শিকার। ইসরায়েলি দখলদারেরা অামাদের ভূমি বেদখল করে নিচ্ছে। আপনি কি জানেন, গর্ভবতী নারীদের যখন জরুরি ভিত্তিতে হাসপাতালে নেওয়া হয়, তখনও ইসরায়েলি পুলিশ চোকপোষ্টে তল্লাসীর নাম করে তাদের বাধা দেয় এবং সেখানেই মানে রাস্তার উপরেই তাদেরকে সন্তান জন্ম দিতে বাধ্য করে? আপনি কি ইসরা আবেদের কথা জানেন? আলুফায় সম্পূর্ণ নিরীহ এ মাকে ইসরায়েলের পুলিশ গুলি করে হত্যা করেছে, অথচ তিনি তাদের কিছুই বলেননি বা করেননি। আপনার কি মোহাম্মদ আবু কাদিরের কথা মনে অাছে? গতবছর ফিলিস্তিনি এ শিশুটিকে ইসরায়েলি বেদখলদারেরা জীবন্ত পুড়িয়ে মেরেছিল? গত মাসে ইসরায়েলি বাহিনী অন্তত ১৭ জন ফিলিস্তিনি শিশুকে শুধুমাত্র পাথর ছোঁড়া বা কোনো কোনো ক্ষেত্রে বিনা অপরাধে গুলি করে হত্যা করেছে? এসব কি আপনি জানেন?

আপনি আপনার লেখায় এসব ইসরায়েলি বর্বরতার কোনোটিরই উল্লেখ করেননি, কিন্তু আমি জানি, অাপনি প্রতিটি ঘটনা সম্পর্কেই অবহিত আছেন। আপনি একসময় যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন, এখন অন্যতম প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী। আপনার এসব অজানা থাকার কথা নয়। কিন্তু এতকিছু জানা সত্বেও আপনি চুপ থাকার নীতি অবলম্বন করলেন। হতে পারে, অামেরিকায় আপনার রাজনীতির জন্য সেটাই ঠিক। কিন্তু আমার মত যারা নিরীহ ও প্রতিনিয়ত নির্মম নির্যাতনের শিকার তাদের কাছে এটা ভন্ডামি ছাড়া আর কিছু নয়।

হিলারি, বিশ্বজুড়ে বহু নারীর অনুপেরণা আপনি। আমিও মানবাধিকার নিয়ে কাজ করতে চাই। কিন্তু আপনার এ কলাম আমাকে খুবই হতাশ করেছে। আমি জানি আপনি আরো ভালো হতে পারেন, বা পারতেন। আপনার প্রতি আমার অনুরোধ, দয়া করে ভবিষ্যতে আর এসব ভন্ডামি করবেন না।

লায়ালি আওয়াদ

শিক্ষার্থী, রামাল্লা






মন্তব্য চালু নেই