মেইন ম্যেনু

হুইপের আসনে প্রধানমন্ত্রী !

সংসদীয় আচরণবিধি মানতে গিয়ে হুইপের আসনে বসলেন প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে পয়েন্ট অব অর্ডারে বক্তব্য চলাকালে প্রধানমন্ত্রী এমন দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন।

ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অধিবেশনে এ সময় প্রধানমন্ত্রীর কারামুক্তি দিবস নিয়ে পয়েন্ট অব অর্ডারে বক্তব্য রাখছিলেন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি।

অধিবেশন কক্ষে পালনীয় আচরণবিধির ৪ নম্বর ধারায় বলা আছে ‘কোন সদস্যের বক্তৃতা চলাকালে ওই সদস্য ও সভাপতির মধ্যবর্তী স্থান দিয়ে চলাচল করা যাবে না।’

প্রধানমন্ত্রী যখন অধিবেশন কক্ষে ঢোকেন তখন দীপু মনি বক্তব্য রাখছিলেন। আর তখন আচরণবিধি মানতে গিয়ে ট্রেজারি বেঞ্চের তিন নম্বর সারির প্রথম চেয়ারে গিয়ে বসেন সংসদ নেতা। ওই চেয়ারের পাসের চেয়ারটিতে দাঁড়িয়েই বক্তব্য রাখছিলেন দীপু মনি। আর প্রধানমন্ত্রী যে চেয়ারটিতে গিয়ে বসেন সেটি ছিলো হুইপ শহীদুজ্জামান সরকারের। প্রধানমন্ত্রী ওই চেয়ারে বসার পর চিফ হুইপ তার আসন থেকে উঠে এক সারি পেছনে গিয়ে বসেন। প্রায় ৮ মিনিট শহীদুজ্জামানের চেয়ারেই বসেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় সামনের সারিতে বসা ছিলেন নবম সংসদের হুইপ নূরে আলম চৌধুরী লিটন।

দীপু মনির বক্তব্য শেষ হলে তার সঙ্গে করমর্দন করে পরে নিজ চেয়ারে গিয়ে বসেন শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর এমন দৃষ্টান্তে কিছুক্ষণের জন্য গ্যালারিতে উপস্থিত দর্শণার্থী ও নবীন সংসদ সদস্যদের মাঝে বেশ কৌতুহল সৃষ্টি হয়।






মন্তব্য চালু নেই