মেইন ম্যেনু

হুমায়ুন ফরীদির কাছে থেকে অভিনয় শিখেছি : মমতাজ

দেশের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী মমতাজ চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছেন। উত্তম আকাশ পরিচালিত  চলচ্চিত্রটির নাম ছিল ‘মমতাজ’।  এতে অভিনেতা  হুমায়ুন ফরীদির বিপরীতে অভিনয় করেছেন মমতাজ। আজ  হুমায়ুন  ফরীদির জন্মদিনে তাঁকে স্মরণ করেছেন মমতাজ।

প্রশ্ন : ‘মমতাজ’ ছবিতে হুমায়ুন ফরীদির সঙ্গে আপনার কাজের অভিজ্ঞতা কী রকম ছিল?

উত্তর : আমি তো গানের জগতের মানুষ । অভিনয়ের কিছুই জানতাম  না  এবং বুঝতামও না।  মমতাজ ছবিটি না করলে হয়তো হুমায়ুন ফরীদির সঙ্গে আমার  কোনো দিন দেখাও হতো না। ছবি করতে গিয়ে তাঁর সঙ্গে আমার প্রথম পরিচয়। উনি বড় মাপের একজন শিল্পী। এতে কোনো সন্দেহ নেই। উনাকে আমি অনেক সম্মান ও শ্রদ্ধা করি। আমার ছবির শুটিংয়ের কোনো অভিজ্ঞতা ছিল না। হুমায়ুন  ফরীদির  কাছে থেকে আমি অভিনয় শিখেছি।  তিনি আমার কাছ থেকে অভিনয় বের করে নিয়ে এসেছিলেন। অভিনয়ের প্রতি তাঁর দায়িত্ববোধ ও ভালোবাসা দেখে আমি মুগ্ধ হয়েছি।  তাঁর সহযোগিতা না পেলে হয়তো মমতাজ ছবিটিতে অভিনয় করা আমার জন্য সহজ ছিল না।  মানুষ হিসেবেও  হুমায়ুন  ফরীদি  ছিলেন অসাধারণ। আমি যতটুকু বুঝেছি তাঁর ভিতরের কথাগুলো তিনি কাউকে বুঝতে দিতে চাইতেন না। সবসময় তিনি ছিলেন হাসোজ্জ্বল।  অন্যকে হাসাতেও পছন্দ করতেন।

Momtaj

প্রশ্ন :  ছবিতে  আপনার সঙ্গে  হুমায়ুন ফরীদির গানের অনেক  দৃশ্য রয়েছে। শুটিংয়ের মুহূর্তগুলো কী রকম ছিল?

উত্তর : আমি তো গানের দৃশ্যগুলো করার সময় লজ্জা পাচ্ছিলাম। কিন্তু গানের দৃশ্যেও  হুমায়ুন ফরীদি সাবলীলভাবে অভিনয় করেছিলেন।  তিনি যে আমার সত্যিকারের গুরুজি নন এটা বোঝার কোনো উপায় ছিল না।  কারণ তাঁর অভিনয় ছিল প্রাণবন্ত। ছবির পরিচালক উত্তম আকাশও আমাকে  উৎসাহ  দিয়েছিলেন। তাই গানের রোমান্টিক দৃশ্যগুলো  ভালোভাবে শেষ করতে পেরেছিলাম।

প্রশ্ন : ‘মমতাজ’ ছবির পর আর কোনো ছবিতে অভিনয় করেননি। আর কোনো চলচ্চিত্রে অভিনয় করার ইচ্ছে আছে কী?

উত্তর : ইচ্ছে তো আছেই।  ‘মমতাজ’ ছবিটিকে কিন্তু পুরোপুরি আমার আত্মজীবনী বলা যাবে না। এটা বলতে পারেন চলচ্চিত্রই। আমার সত্যিকারের জীবনকাহিনী নিয়ে একটি চলচ্চিত্র করার  ইচ্ছে রয়েছে। সেটা যদি না করতে পারি তাহলে তথ্যচিত্র নির্মাণ করব।  দেরিতে হলেও করতে আগ্রহী আমি। এনটিভি






মন্তব্য চালু নেই