মেইন ম্যেনু

হুয়াওয়ের ১০ কোটি স্মার্টফোন বিক্রি!

২০১৫ সালে ১০ কোটি ইউনিট স্মার্টফোন বিক্রি করে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম স্মার্টফোন নির্মাতার জায়গা দখল করেছে চীনের প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে কনজিউমার বিজনেস গ্রুপ।

হুয়াওয়ে কর্তৃপক্ষের দাবি: এ বছর ১০ কোটি ইউনিটের বেশি স্মার্টফোন বিক্রি করে বিশ্বে স্যামসাং ও অ্যাপলের পরের স্থানটি নিয়েছে তারা। বিশ্বব্যাপী স্মার্টফোনের ক্ষেত্রে নয় শতাংশ ও চীনের বাজারে ১৫ শতাংশ বাজার এই প্রতিষ্ঠানটির দখলে।

হুয়াওয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে দাবি করা হয়েছে, চীনের বাজারে বৃহত্তম মোবাইল ব্র্যান্ড হিসেবে উঠে আসার পাশাপাশি এ বছর বিশ্ব বাজারে ৩৩ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে প্রতিষ্ঠানটির।শুধুমাত্র সেপ্টেম্বরেই হুয়াওয়ের চল্লিশ লাখ ইউনিট পি ৮ স্মার্টফোন বিক্রি। ছবি: হুয়াওয়ের সৌজন্যে।

ব্লুমবার্গ বিজনেসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নেটওয়ার্ক যন্ত্রপাতি ব্যবসার পাশাপাশি ২০০৯ সাল থেকে অ্যান্ড্রয়েড সফটওয়্যার চালিত ফোন তৈরির মাধ্যমে স্মার্টফোনের বাজারে আসে হুয়াওয়ে। বাজার বিশ্লেষকেদের মতে, মানুষ এন্ট্রি লেভেল ফোন থেকে ধীরে ধীরে হাই অ্যান্ড ডিভাইসে হালনাগাদ করবে-এ ধারণার ওপর ভিত্তি করে কাজ শুরু করে হুয়াওয়ে। ব্লুমবার্গ ইন্টেলিজেন্সের বিশ্লেষক জন বাটলার ও ম্যাথু ক্যান্টারম্যান বলেন, ২০১৬ সালেও হুয়াওয়ে তাদের ধারা বজায় রেখে হাই অ্যান্ড ও মিড রেঞ্জের ফোন তৈরিতে বিনিয়োগ করে যাবে।

হুয়াওয়ে কনজিউমার বিজনেস গ্রুপ হ্যান্ডসেট লাইনের প্রেসিডেন্ট কেভিন হো বলেন, ‘আকস্মিকভাবে হুয়াওয়ের এ সফলতা আসেনি। ভোক্তাদের চাহিদাই সফলতার অন্যতম কারণ। প্রিমিয়াম স্মার্টফোনগুলো সারা বিশ্বের মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে পেরে আমরা গর্বিত।’

কেভিন হো আরও বলেন, প্রতিনিয়ত স্মার্টফোনের ধরনে পরিবর্তন আসছে। আরও উন্নত স্মার্টফোন বাজারে আনতে আগামী বছরে নতুন প্রযুক্তি সংযোজন ও বিশ্বের সেরা কয়েকটি ব্র্যান্ডের সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করা হবে।

হুয়াওয়ের সবচেয়ে বিক্রি হওয়া উল্লেখযোগ্য স্মার্টফোনগুলোর মধ্যে রয়েছে পি৮, পি ৭, মেট ৭, মেট এস. নেক্সাস ৬ পি, মেট ৮ প্রভৃতি।






মন্তব্য চালু নেই