মেইন ম্যেনু

হেযবুত তওহীদের লিফলেটে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের পদধ্বনি

সরকারি নিষেধাজ্ঞা থাকলেও প্রশাসনের নজর এড়িয়ে রাজশাহীর দুর্গাপুরে এবার হেযবুত তওহীদের নামে লিফলেট বিলি করা হয়েছে। যাতে বর্তমান সরকারকে কটাক্ষ করা হয়েছে ও তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের পদধ্বনি আসন্ন বলে মানব জাতির ধ্বংসের কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সংগঠনের দুইজন নারী কর্মী রাজশাহী জেলার দুর্গাপুর উপজেলা সদরের বিভিন্ন দোকান ও ব্যক্তির কাছে এসব লিফলিট বিলি করেন। বিষয়টি নিয়ে বৃহস্পতিবার সারাদিন সাধারণ লোকজনের মাঝে আলোচনার ঝড় বইতে থাকে।

হেযবুত তওহীদ নিজস্ব পত্রিকা প্রকাশ করে সংবাদপত্রের আড়ালে নিজেদের সংগঠনের লিফলেট ও বিভিন্ন ধরনে বই পুস্তক বিলি করছে। এর আগেও দুর্গাপুর থানা এলাকায় জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা (এনএসআই) সংস্থা ও থানা পুলিশ যৌথ অভিযান চালিয়ে ২০১৪ সালের ২৬ নভেম্বর জঙ্গি সন্দেহে হেযবুত তওহীদের চার সদস্যকে আটক করেছিল। এ সময় তাদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ লিফলেট, সংগঠনের পুস্তক ও দুটি মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়েছিল।

সে সময় জঙ্গি সন্দেহে ময়মনসিংহের সাকিব আহমেম্মদ (২৮), চারঘাটের রবিউল ইসলাম (২৬), একই এলাকার শাহিনুর রহমান (২২) ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের রহনপুর উপজেলার বিল্লাল আহম্মেদকে (২৫) আটক করেছিল পুলিশ। এদের মধ্যে সাকিব আহম্মেদ রাজশাহী জেলা হেযবুত তওহীদের আমির এবং অপর তিনজন সদস্য বলে পুলিশের কাছে স্বীকারোক্তি দিয়েছিল।

পরে সাকিব বোয়ালিয়া থানা পুলিশের হাতে আবারো গ্রেপ্তার হলে পুলিশ তাকে বিস্ফোরকদ্রব্য আইনে গ্রেপ্তার দেখিয়ে জেলে পাঠায়। পরে তিনি জামিনে ছাড়া পেলেও পুনরায় গ্রেপ্তার এড়াতে দুর্গাপুর থানায় জব্দ করা দুটি মোটরসাইকেল ছাড়িয়ে নিতে আর আসেননি।

দুর্গাপুর উপজেলা মোড়ের ফটোকপি ব্যবসায়ী শহিদুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে দু’জন অপরিচিত নারীকর্মী হেযবুত তওহীদের পরিচয় দিয়ে পুস্তক সাদৃশ্য কিছু বই ও লিফলেট বিলি করতে থাকে। এ সময় তারা তাকেও একটি মাসিক পত্রিকা কিনতে অনুরোধ করে। ওই দুই নারীর অনুরোধে ১০ টাকা দিয়ে একটি পত্রিকা তিনি কিনে নেন। পরে সেটি পড়ে তিনি দেখতে পান বর্তমান সরকারকে কটাক্ষ করে বেশ কয়েকটি প্রবন্ধ লেখা রয়েছে।

ওই পত্রিকাটিতে বর্তমান সরকার ও সরকারের শাসন ব্যবস্থাকে কটাক্ষ করে মোট ৮টি প্রবন্ধ লেখা রয়েছে। যেমন- তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের পদধ্বনি ধ্বংস হবে মানব জাতি, নৈতিক অবক্ষয়ের নেপথ্যে: ধর্ম নিরপেক্ষতার নামে ধর্মহীনতার চর্চা, ক্রিকেটের উদীয়মান পরাশক্তি বাংলাদেশকে ঘিরে বৈদেশিক অপতৎপরতা, সকলেই চান জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধতা এবং জনসচেতনতা কিন্তু কি কথা দিয়ে?, এটাই কি সভ্যতার সংঘাত নয়?, জঙ্গীদের বিরুদ্ধে কোঠর ব্যবস্থায় জঙ্গিবাদ আরো বেড়েছে, পশ্চিমে ধর্মনিরপেক্ষ ব্যবস্থা গৃহিত হলে প্রাচ্যে কেন হচ্ছে না? ও জাতির কালঘুম ভাঙতে যে সূর্যের উদয়।

হেযবুত তওহীদের প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মাদ বায়াজীদ খান পন্নী সম্পাদিত ওই পত্রিকাটির স্লোগানে বলা হয়েছে হেযবুত তওহীদ মানবতার কল্যাণে নিবেদিত। মানুষ দেহ ও আত্মার সমন্বয়ে আল্লাহর শ্রেষ্ঠ সৃষ্টি। একটা সঠিক আদর্শ দ্বারা যতদিন মানুষের আত্মা পরিবর্তন সাধন করা না হবে, এই ভুল জীবন ব্যবস্থার পরিবর্তন না হবে, ততোদিন পৈশাচিকতা কেউ বন্ধ করতে পারবে না।

বৃহস্পতিবার শহিদুল ইসলামের মতো অনেককেই এই পত্রিকাটি পড়তে দেখা গেছে। পত্রিকাটির মূল পাতায় আরো বলা হয়েছে রাষ্ট্রের সঙ্গে ধর্মের যোগ এ যুগে কি সম্ভব?

এ প্রসঙ্গে দুর্গাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পরিমল কুমার চক্রবর্তী জানান, সংগঠনটি একবারে নিষিদ্ধ করা হয়েছে এই মর্মে আমাদের কাছে কোনো ধরনের তথ্য নেই। তবে তাদের কার্যক্রম ও গতিবিধি পুলিশের পক্ষ থেকে মনিটরিং করা হচ্ছে। এর আগেও তাদের কয়েকজন সদস্যকে এ এলাকায় পত্রিকা লিফলেট বিলির সময় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ভবিষ্যতেও তা অব্যাহত থাকবে। দেশের আইন শৃঙ্খলা বিঘ্ন ঘটাতে পারে এ ধরনের কোনো কার্যক্রম চলতে দেয়া হবে না বলেও জানান তিনি।






মন্তব্য চালু নেই