মেইন ম্যেনু

হেরে গেলেন সেই নার্গিস বেগম

নির্বাচনে হেরে গেলেন দেশের প্রথম নারী মেয়র নার্গিস খাতুন। পৌরসভা নির্বাচনে রাজশাহীর চারঘাট পৌরসভা থেকে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন তিনি। বুধবারের পৌরসভার নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী জাকিরুল ইসলাম বিকুলের কাছে অল্প ব্যবধানে পরাজিত হন।

এর আগে, ২০১১ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি নির্বাচনে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশের একমাত্র নারী পৌর মেয়র নির্বাচিত হন। দেশের কোনো পৌরসভার প্রথম নারী মেয়র। বাঘা-চারঘাটের সাবেক এমপি ও প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা রায়হানুল হক রায়হানের স্ত্রী নার্গিস এবারের পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী ছিলেন।

২০১১ সালের নির্বাচনে অনেক বড় ব্যবধানে নার্গিস বেগম বিজয়ী হলেও এবারে তিনি পরাজিত হয়েছেন। চারঘাটে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী জাকিরুল ইসলাম বিকুল ৭ হাজার ৭৩৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে নার্গিস বেগম পেয়েছেন ৭ হাজার ৩৩০ ভোট। মাত্র ৪০৭ ভোটের ব্যবধানে তিনি এবারের নির্বাচনে পরাজিত হন।

মেয়র নির্বাচনের পর চারঘাট নারীদের এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য অনেক বড় ভূমিকা রাখলেও দলীয় কোন্দলের কারণে এবারের নির্বাচনে পরাজিত হয়েছেন।

চারঘাট পৌরসভায় দলীয় মনোনয়ন নিয়েই কোন্দল শুরু হয়। মনোনয়ন যুদ্ধে মাঠে নেমেছিল চারঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিশিষ্ট ক্রীড়া সংগঠক একরামুল হক, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি কাজী মাহমুদুল হাসান এবং সাবেক সাংসদ রায়হানুল হকের সহধর্মীনি বর্তমান নার্গিস খাতুন।

তবে সবাইকে পেছনে ফেলে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক ছিনিয়ে নেন নার্গিস খাতুন। আওয়ামী লীগ থেকে দলীয় মনোনয়ন পেতে ব্যর্থ হয়ে অনেকেই নার্গিসের পক্ষ থেকে নির্বাচনের মাঠে ছিলেন না। অনেকে আবার ‘আই ওয়াশ’ করার মতো মাঠে ছিল। নির্বাচনের শেষ পর্যন্ত এ কোন্দল মেটাতে না পারার কারণে নার্গিস খাতুনকে পরাজিত হতে হয়েছে।

তবে সবচেয়ে বড় কারণ হচ্ছে ওই পৌরসভায় বিদ্রোহী হিসেবে আওয়ামী লীগের অন্য প্রার্থীর মাঠে থাকা। ওই পৌরসভা থেকে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী হিসেবে মাঠে ছিলেন গোলাম কিবরিয়া বিপ্লব। বিদ্রোহী হিসেবে বিপ্লব এক হাজার ৫৪ ভোট পেয়েছেন। এ ভোটটি যদি নার্গিস খাতুনের ব্যালটে জমা হতো তাহলে দেশের প্রথম পৌর মেয়রকে পরাজিত হতে হতেন না।

এরপরেও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের নির্বাচন এলাকায় আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী পরাজিত হওয়া ও বিদ্রোহী দমন করতে না পারার বিষয়টি অনেকের কাছে অবাক করেছে।






মন্তব্য চালু নেই