মেইন ম্যেনু

ফতুল্লা টেস্ট

হোটেলে বন্দী ক্রিকেটাররা

ভারতীয় ক্রিকেটারদের যেন চোখে-মুখে কালো মেঘের ছায়া। ঠিক তার বিপরীত চিত্র বাংলাদেশ শিবিরে। এই কালোর মধ্যে যেন আলো দেখছেন টাইগার ক্রিকেটাররা। ফতুল্লা টেস্টের দ্বিতীয় দিনটি ভেসে গেছে বৃষ্টিতে। যে কারণে বৃহস্পতিবার দুই দলের ক্রিকেটাররা বৃষ্টিতে হোটেলে ছিলেন বন্দী হয়ে।

ফতুল্লা টেস্ট ম্যাচের দ্বিতীয় দিনের শুরু থেকে শুরু হয় মুষলধারে বৃষ্টি। এই বৃষ্টির বেগ ক্রমান্বয়ে হ্রাস-বৃদ্ধি পেলেও খেলা আর মাঠে গড়ায়নি। সকাল থেকে শুরু হওয়া বৃষ্টিতে শেষ পর্যন্ত দুই দলের ক্রিকেটাররা আর মাঠ-মুখো হননি। সারাদিন টিম হোটেলে শুয়ে বসেই কেটেছে তাদের।

আগেরদিন ভারতীয় দলের বাঁহাতি ওপেনার শিখর ধাওয়ান তার টেস্ট ক্যারিয়ারে ১৫০ রানের মাইলফলক স্পর্শ করেছেন। অতিথি দলের আরেক ওপেনার মুরালি বিজয় সেঞ্চুরির অপেক্ষায় রয়েছেন। আর মাত্র ১১ রান করলেই তিন অংকের ম্যাজিক্যাল ফিগারে পা রাখবেন ভারতীয দলের এই ডানহাতি ওপেনার।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বৃষ্টি হওয়ায় দুই দলের ক্রিকেটারদের ছিল না কোনো মাঠের আসার বাড়তি ঝক্কি- ঝামেলা। এই সঙ্গে ছিল না কোনো বাড়তি টেনশন। মাঠে আসলে বাজে বোলিং-ব্যাটিং কিংবা খারাপ ফিল্ডিং করলে শুনতে হতো দর্শকদের দুয়ো-ধ্বনি। তাই এসব থেকে বৃহস্পতিবার কিছুটা হলেও পরিত্রান পেয়েছে স্বাগতিক ক্রিকেটাররা।

একে তো আগেরদিন ৫৬ ওভার বোলিং করে একটি উইকেটেরও দেখা পাননি টাইগার ক্রিকেটাররা। তাই বৃষ্টির কল্যাণে স্বস্তিতে ছিলেন মুশফিক-তামিমরা। তবে ফতুল্লা টেস্টের দ্বিতীয় দিনে ব্যাট-বলের লড়াইয়ে না নামতে পেরে বেশ খানিকটা হতাশ ছিলেন অতিথি দলের ক্রিকেটাররা। ভারতীয় দলের অনেক ক্রিকেটার এদিন ফতুল্লার আকাশের মতো মুখ গোমড়া করে বসে ছিলেন। বারবার কোহলি-বিজয়রা খেলা শুরু ব্যাপারে ভারতীয় টীম ম্যানেজমেন্টের কাছে খোঁজ-খবর নিয়েছে বলে জানা গেছে।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই