মেইন ম্যেনু

হয়রানি ইস্যুতে শুভশ্রীর পাশে দাঁড়ালেন টালিগঞ্জের নায়িকারা

সম্প্রতি একটি কলেজের বার্ষিক অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গিয়ে হয়রানির শিকার হন ওপার বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী শুভশ্রী। এরপর থেকেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন তিনি। তৎক্ষণাৎ অনুষ্ঠান ছেড়ে চলে আসেন শুভশ্রী। আর এই ঘটনার পর তার পাশে দাঁড়ান টালিগঞ্জের বেশ কয়েকজন নায়িকা।

তাদের একজন ঋতুপর্ণা। তিনি বলেন, ‘প্রথমেই বলব আমি শুভশ্রীর পাশে আছি। কোনও শিল্পী যখন এ ধরনের অনুষ্ঠান করতে যান তখন নিরাপত্তা মাস্ট। উদ্যোক্তাদের এ ব্যাপারে আরও সচেতন হওয়া উচিত ছিল। তবে শিল্পীদেরও নিরাপত্তা নিয়ে আগে থেকে উদ্যোক্তাদের সঙ্গে কথা বলে নিতে হবে। শুভশ্রীর সঙ্গে যেটা হয়েছে তা খুব খারাপ। আমিও প্রচুর শো করি। আমার হাই সিকিউরিটি থাকে। তাই এমন সমস্যায় পড়লেও তা ওভারকাম করতে পেরেছি।‘

নিজের অভিব্যক্তি জানাতে গিয়ে আরেক নায়িকা শ্রীলেখা বলেন, ‘ঘটনাটা খুব শকিং। আমি শুভশ্রীর পাশে আছি। ও প্রতিবাদ করে ঠিকই করেছে। ঘটনাটা ভবিষ্যতে দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। অন্য আর্টিস্টরা আরও সচেতন হতে পারবেন। উদ্যোক্তাদেরই তো নিরাপত্তার দায়িত্ব নেওয়া উচিত। তাঁদের দিক থেকেই গাফিলতি ছিল বলে মনে হয়। আমিও শো করি। অনেক দিন আগে বনগাঁয় হ্যারাস হয়েছিলাম। আমিও প্রতিবাদ করেছিলাম। মিডিয়া হয়তো জানতে পারেনি। তবে পুলিশে অভিযোগ জানিয়েছিলাম।‘

অন্যদিকে নায়িকা পায়েল বলেন, ‘দিস ইজ ভেরি আনফরচুনেট। আর্টিস্ট শো করতে গেলে তাকে সম্মান দিতেই হবে। এটা মনে নেওয়ার কোনও কারণ নেই একজন আর্টিস্ট পাবলিক প্রপার্টি। আমার তো মনে হয় শুভশ্রীর ওই অনুষ্ঠানের উদ্যোক্তাদের আলটিমেটাম দেওয়া উচিত।‘

শুভশ্রীকে সমবেদনা জানিয়ে নায়িকা মিমি বলেন, ‘এটা খুব সিরিয়াস ইস্যু। শুভশ্রীর সঙ্গে যেটা হয়েছে সেটা বাঞ্ছনীয় নয়। আমি উত্তরবঙ্গের মেয়ে। ছোট থেকেই দেখেছি ফালাকাটায় প্রচুর অনুষ্ঠান হয়। যাঁরা ওকে নিয়ে গিয়েছেন তাঁদেরই নিরাপত্তা দেওয়া উচিত ছিল। একজন মহিলা হিসেবে আমি ওর পাশে রয়েছি।‘

এদিকে শুভশ্রী হয়রানি করার ঘটনায় ক্রমশ চাপ বাড়ছে প্রশাসনের উপরে। ঘটনার ২৪ ঘণ্টা পরেওকাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। অনুষ্ঠানে ফালাকাটা থানার পুলিশ ছাড়াও র্যা ফ মজুত ছিল। তার পরেও কী করে শুভশ্রী অভব্য আচরণের মুখে পড়লেন, তারও কোনও জবাব মেলেনি।






মন্তব্য চালু নেই