মেইন ম্যেনু

১০৪ এজেন্সিকে তলব, দেশে ফেরার প্রমাণ দেখাতে হবে

ওমরা শেষে নিজেদের লোক দেশে ফিরে এসেছেন- এমন তথ্য-প্রমাণ হাজির করতে হবে হজ এজেন্সিগুলোকে। অন্যথায় ওমরার নামে মানব পাচারের অভিযোগে বিচারের মুখোমুখি হতে হবে।

ইতিমধ্যেই দেশের ১০৪টি এজেন্সিকে তাদের লোকজনের দেশে ফেরার তথ্য-প্রমাণ হাজির করতে তলব করা হয়েছে। কয়েকদিনের মধ্যে তাদের নোটিশ দেওয়া হচ্ছে। এমন কর্মকৌশল ঠিক করে এগোচ্ছে ওমরার নামে মানব পাচারের ঘটনা তদন্তে গঠিত আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটি।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ে মঙ্গলবার সকালে অনুষ্ঠিত তদন্ত কমিটির প্রথম বৈঠকে তদন্ত কাজের এমন কৌশল নির্ধারণ করা হয়েছে। বেলা এগারটার দিকে প্রথম বৈঠকে বসে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি।

কমিটির প্রধান ধর্ম মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) মো. শহিদুজ্জামানের সভাপতিত্বে বৈঠক চলে দুপুর একটা পর্যন্ত। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন কমিটির সদস্য সচিব ধর্ম মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব (হজ) নাসির উদ্দিন আহমেদ, সদস্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব কাজী নাজির হোসেন, ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমানের একান্ত সচিব (পিএস) ড. মো. আবুল কালাম আজাদ। তবে দেশের বাইরে থাকায় বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের উপসচিব নায়েব আলী ম-ল বৈঠকে ছিলেন না।

বৈঠক সূত্র জানায়, সৌদি সরকার কর্তৃক ১০৪ এজেন্সির বিরুদ্ধে উত্থাপিত ‘ওমরার নামে মানব পাচারের’ অভিযোগ প্রমাণের জন্য এজেন্সিগুলোকে তদন্ত কমিটির কাছে হাজির হতে হবে। এজেন্সিগুলোকে দুই ভাগে ভাগ করে দুই দফায় চলবে এই তদন্ত কাজ। প্রথম দফায় আগামী ১ সেপ্টেম্বর ৫২টি এজেন্সিকে ডাকা হবে। বাকিগুলোকে ডাকা হবে ৩ সেপ্টেম্বর।

জানা গেছে, ওমরা করতে যাদের সৌদি আরব পাঠানো হয়েছে তাদের দেশে ফেরার যাবতীয় তথ্য-প্রমাণ দেখাতে হবে তদন্ত কমিটির কাছে। অনলাইনেও খতিয়ে দেখা হবে আসলে তারা দেশে ফিরে এসেছেন কিনা।

এ ব্যাপারে কমিটির প্রধান ধর্ম মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) মো. শহিদুজ্জামান বলেন, ‘আমরা আজ প্রথম বৈঠক শেষ করেছি। ১০৪ এজেন্সিকে তলব করা হচ্ছে। আগামী ১ ও ৩ সেপ্টেম্বর পর্যায়ক্রমে আমরা তাদের সঙ্গে বসবো। অভিযোগ অনুযায়ী তারা তাদের লোক দেশে ফিরে আসার যাবতীয় তথ্যসহ প্রমাণ দেবে। বিশেষ করে অনলাইনে তার প্রমাণ দেখাতে হবে।’

ওমরার নামে মানবপাচারের ঘটনা খতিয়ে দেখতে সোমবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) মো. শহিদুজ্জামানকে প্রধান করে ৫ সদস্যের এ তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।






মন্তব্য চালু নেই